কীভাবে বলিউডে পা রাখা, শেষে কটাদিনই বা ঠিক কীভাবে কাটিয়েছিলেন সুশান্ত, পরিবারের স্বপ্ন বুকে আগলে কীভাবে বেড়ে উঠেছেন সুশান্ত। এই সব নিয়ে এখন ভক্তদের আবেগ তুঙ্গে। আর সেই কাহিনি পর্দায় তুলে ধরতে মরিয়া পরিচালক থেকে প্রযোজক। মুহূর্তে বানিয়ে ফেলা হয়েছে নানা ছকে গল্প। কিন্তু সুশান্ত সিং রাজপুতের পরিবার মোটেও এই সিদ্ধান্তে ছিলেন না খুশি। তাঁরা স্পষ্টতই জানিয়ে ছিলেন অভিযোগ। 

আরও পড়ুন- 'কলকাতায় গেলে একবার দেখা করতামই' , বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের প্রয়াণে আবেগঘন পোস্ট দীপ্তি নাভালের 

আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন সুশান্ত সিং রাজপুতের বাবা কে কে সিং। জানিয়েছিলেন তিনি মোটেও চান না যে তাঁর ব্যক্তিগত জীবনের সবকিছু সামনে আসুক। তাই তিনি আবেদন জানিয়েছিলেন এর ওপর যেন নিষেধাজ্ঞা জরি করা হয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার দিল্লি হাইকোর্টের তরফ থেকে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, যে এই নিয়ে ছবি করা যাবে, এবং এই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়। 

সুশান্তের বাবার এই আবেদন খারিজ করে দিলেন দিল্লি হাইকোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব নারুলা। এরপরই স্বস্তির নিশ্বাস ফেলে পরিচালক ও প্রযোজক সংস্থা। যাঁরা ইতিমধ্যেই একাধিক চিত্রনাট্য নিয়ে প্ল্যানিং করেছেন বারে বারে। সিনে দুনিয়ার পক্ষের আইনজীবী এ পি সিংহ দিল্লি আদালতের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। যার ফলে বলাই চলে যে শীঘ্রই বড় পর্দায় দেখা যাবে প্রয়াত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের জীবনী।