মার্চ মাস থেকেই বন্ধ হয়েছিল শ্যুটিং। করোনার প্রকোপ দেশে পড়া মাত্রই সবার আগে শপিং মল ও প্রেক্ষাগৃহ বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেখানই ইতি নয়, তার কয়েকদিনের মধ্যে পুরো দেশ লকডাউন করে দেওয়া হয়। ফলে ঝাঁপ বন্ধ হয় বলি ও টলি পাড়ার। বন্ধ শ্যুটিং, বন্ধ প্রেক্ষাগৃহ, নতুন কোনও পর্ব নেই ধারাবাহিকে, এক কথায় বলতে গেলে স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল লাইট ক্যামেরা অ্যাকশনে মোড়া জগত। কবে দেশ ফিরবে ছন্দে, কীভাবে অস্থায়ী কর্মীরা সংসার চলবে, তা ভেবে মাথায় হাত পড়েছিল অনেকেরই। 

আরও পড়ুনঃগরম বাড়ছে ক্রমশ, বিকিনিতে ধরা দিয়ে পারদ চড়ালেন হিনা

লকডাউন শিথিল হলেই যেন শ্যুটিং শুরু করা যায়, একাধিক আর্জি জমা পড়েছিল সরকারের কাছে, সেই দিকে নজর দিয়েই রবিবার উদ্ধব ঠাকরে জারি করলেন নির্দেশিকা। সেখানই উঠে এল একাধিক নিষেধাজ্ঞা, যা মেনে নিলে তবেই সম্ভব শ্যুটিং। যার মধ্যে অন্যতম হল, কোনও চুম্বণ কিংবা শষ্যা দৃশ্য নয়, করা যাবে না আলিঙ্গনও। পাশাপাশি প্রবীণ কাউকে সেটে আনা যাবে না। অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের ক্ষেত্রে মিলবে না শ্যুটিং-এর অনুমতি। 

 

 

নিষেধাজ্ঞা একাধিক থাকলেও অনুমতি পেয়ে বেজায় খুশি বিনোদন জগত। পরিচালক তথা প্রযোজক একতা কাপর এদিন উদ্ধব ঠাকরের উদ্দেশ্যে বার্তা পাঠিয়ে ধন্যবাদ জানান, পাশাপাশি খুশির হাওয়া বিনোদন জগতে। এতদিন অনিশ্চয়তার মধ্যে দিয়ে কাটলেও, এবার নিয়ম মেনে স্বাভাবিক ছন্দে ফেরার পথে দেশ। নেই কোনও স্থায়ী আয়, কতদিন এভাবে সঞ্চয় ভেঙে খাওয়া যায়! সেই চিন্তার অবসান ঘটল। তবে সামাজিক দূরত্ব ও সতর্কতাকে করে নিতে হলে মূল মন্ত্র।