সোমবার সকালেই মিলেছিল দুঃসংবাদ। করোনা প্রাণ কেড়েছে সঙ্গীত পরিচালক ওয়াজিদ খানের। মুহূর্তে শোকের ছায়া পড়েছিল বিনোদন জগতে। মাত্র ৪২ বছর বয়সেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ওয়াজিদ। আরই এরই সঙ্গে ভেঙে যায় সাজিদ-ওয়াজিদের জুটি। বলিউডের একের পর এক তারকারা শোকবার্তা জানাতে থাকেন পরিবারের প্রতি। কিন্তু তখনও সঙ্গীত পরিচালকের মা-বাবা অন্ধকারে। মেলেনি ছেলের মৃত্যু সংবাদ। 

করোনা আক্রান্ত হলে পরিবারের সকলকেই রাখতে হবে কোয়ারেন্টাইনে। বয়স হয়েছে সঙ্গীত পরিচালকের মা-বাবার। তাই তাঁদের ক্ষেত্রে সাবধানতা বেশি করে অবলম্বন করা প্রয়োজন। তবে বিপদ এখানেই শেষ নয়, করোনাতে আক্রান্ত হয়ে পড়েন ওয়াজিদ খানের মা। কিন্তু বর্তমানে তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল। ওয়াজিদের কিডনির সমস্যা ছিল, তাই রোগের সঙ্গে যুদ্ধে হার মানতে হয় তাঁকে।

আরও পড়ুনঃ সোনাক্ষী জানেন না রামায়ণ, অথচ পরিবারের সঙ্গে আষ্টেপিষ্টে জড়িয়ে রাম-লক্ষণ-শক্রঘ্ন

করোনা হলে মৃতদেহ দেওয়া হবে না পরিবারের সদস্যদের, এমনটাই নিয়ম। কিন্তু ওয়াজিদ খানের মা-বাবা দেহ তো পেলেনই না, এখনও পর্যন্ত জানতে পারেননি তাঁদের সন্তান আর নেই। ডাক্তারের কথায় তাঁদের বয়স হয়েছে, স্বাস্থ্যের বস্থাও খুব এক উন্নত নয়, এমন সময় মৃত্যু সংবাদ সহ্য করতে পারবেন কি না তা ভেবেই পরিবারের কাছ থেকে গোপন রাখা হয়েছে এই তথ্য। তবে ওয়াজিদের মায়ের দেহে করোনা ভাইরাস মিললেও বর্তমানে কেটেছে বিপদ। তিনি ভালো আছেন বলেও জানান হয় ডাক্তারের পক্ষ থেকে।