জল্পনা শেষ, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তাঁর প্রস্তাবিত ভারত সফর বাতিল করলেন। মঙ্গলবার একথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে ডাউনিং স্ট্র্রিটের কার্যালয় থেকে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে সোমবার রাতে থেকে নতুন লকডাউন জারি করা হয়েছে। আর মঙ্গলবার সকালে ভারত সফর বাতিল করেছেন বরিস জনসন। আগামী ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত চলবে লকডাউন। দেশে করোনাপরিস্থিতি  অবনতি হওয়ার কারণ দেখিয়েই প্রস্তাবিত ভারত সফর বাতিল করেছেন বলে জানিয়েছেন বরিস জনসন। আগামী ২৬ জানুয়ারি সাধারণতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে তাঁর বিশেষ অতিথে হিসেবে যোগদান করার কথা ছিল। 

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনজন, জানিয়েছেন ভারত সফর বাতিল করায় তিনি মর্মাহত। বিষয়টি নিয়ে তিনি কথা বলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে। তিনি আর কাছে দুঃখ প্রকাশ করছেন। তবে ২০২১ সালের প্রথম অর্ধেই তিনি ভারত সফরে আসতে পারবেন বলেও আশা প্রকাশ করেছেন। চলতি বছর ব্রিটেনে অনুষ্ঠিত হবে ডি-৭ সামিট। সেই অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মারাত্মক আকার নিয়ে ব্রিটেনে। সেইকারণে আবারও লকডাউনের পথেই হেঁটেছে ব্রিটেন। এই পরিস্থিতিতে তাঁর দেশে থাকা অত্যান্ত জরুরি বলেও জানিয়েছেন জনসন। তিনি আরও বলেছেন করোনাভাইরাস মোকাবিলায় তিনি যাতে আরও বেশি মনোনিবেশ করতে পারেন সেজন্যই এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন। তবে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক মহামারি মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি। তিনি আরও জানিয়েছেন সংক্রমণ রুখতে এই লকডাউন আগামী ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত চলবে। ব্রিটেনের ৫৬ মিলিয়ন মানুষের জন্যই এই লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেনের মাধ্যমে সংক্রমণ ইতিমধ্যে পৌঁছে গেছে ভারতেও। ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৮।