একটি মৃত প্রাণীকে ঘিরে রীতিমত রহস্য দানা বেঁধেছে ব্রিটেনে। কোন প্রাণীর মৃতদেহ? তাই নিয়ে শুরু হয়েছে গেছে নেট-বিতর্ক। এক নেটিজেনের কথায় এটি ঘোড়ার দেহ। যা সমুদ্রে ভেসে এসেছে। কেই আবার বলছেন এটি বিরল প্রজাতির তিমি। কেই আবার সেই সব ছাড়িয়ে বিলুপ্তপ্রায়  প্রাণীর সঙ্গেও তুলনা করেছেন। তবে এখনও পর্যন্ত রহস্যের কোনও সমাধান হয়নি। 

গত ২৯ জুলাই ব্রিটেনের আইনস্টেইল সমুদ্র সৈকতে আসা ভ্রমনার্থীরা খুব দুর্গন্ধ পান। তারপরই তাঁরা সেদিকে যান। আর সেখানেই অদ্ভূদ দর্শন প্রাণীটির দেখতে পান। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি জানিয়েছেন এটিতে চারটি ফ্লিপার ছিল। যা খুবই বিচিত্র দেখতে। লম্বায় প্রায় ১৫ ফুট হবে এটি। ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা হাড়গুলির এক একটির দৈর্ঘ্য প্রায় ১৫ ফুট। 

আর এক ব্যক্তি বলেছেন দেখে মনে হচ্ছিল মৃত প্রাণীটির সঙ্গে অতিরিক্ত জিনিয় সংযুক্ত রয়েছে। এক ব্যক্তির কথায় প্রাণীটি আরও একটি প্রাণীর জন্ম দেওয়ার সময়ই মারা গিয়েছিল। 

উদ্ভট চেহারার প্রাণীটির ছবি ফেসবুকে দেয় আইনডেল কমিউনিটি গ্রুপ। একই সঙ্গে গ্রুপের পক্ষ থেকে লেখা হয়েছে, এলিফ্যান্ট হোয়েল না মনস্টার? সমুদ্র সৈকতি যে প্রাণীটি পড়ে রয়েছে সেটি আসলে কী? এর চারটি ফ্লিপারস রয়েছে। লম্বায় প্রায় ১৫ ফুট বলেও জানান হয়েছিল।   

ফেসবুকে ছবিটি শেয়ার করার সঙ্গে সঙ্গেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। বহু মানুষই মন্তব্য করেন। অনেকেই মৃত প্রাণীটির সঙ্গে ছোট্ট ম্যামথের তুলনা করেন। পাশাপাশি বলেন ম্যামথ প্রাণীটি বিলুপ্ত হয়ে গেছে। কিন্তু এটির সঙ্গে সেটির সাদৃশ্য রয়েছে। অনেকেই আবার বলেন মৃত প্রাণীটি একটি তিমির। যে তিমিটি একটি গরুকে খেয়েনেওয়ার পরই মারা যায়। 

কাজের ভুলের জন্য এতবড় শাস্তি পেতে হল পরিচারিকাকে, প্রাণ হাতে বাড়ি থেকেই ছুটলাগালেন তিনি ..

তবে ন্যাচারাল ইংল্যান্ডের উপদেষ্টা স্পিফেল অ্যালিফ জানিয়েছেন এই প্রাণীর সঠিক পরিচয় এখনও পাওয়া যায়নি। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে তিনি প্রজাতির কোনও জীব। কিন্তু প্রাণীটি পচে গেছে। একই সঙ্গে সমুদ্রের জলে ধুয়ে গেছে। তাই সঠিকভাবে সনাক্ত করা যাচ্ছে না। তবে সমুদ্র সৈকত থেকে পশুটির দেহাংশ সরিয়ে নেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

গজরাজ কি মন কাড়ল চিতাবাঘের, ২৬ সেকেন্ডের ভাইরাল ভিডিও নিয়ে কী বলেছে নেটদুনিয়া ...