Asianet News BanglaAsianet News Bangla

UK PM Election: ঋষি সুনক নাকি লিজ ট্রাস, কে হচ্ছেন ব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী?

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে তার দলের এমপিদের আস্থা হারিয়ে পদত্যাগ করতে হয়েছে। এরপর শুরু হয় দলে নতুন নেতা নির্বাচনের প্রক্রিয়া। কনজারভেটিভ পার্টিতে নেতা নির্বাচনের জন্য দুটি ধাপ রয়েছে। প্রথম ধাপে কনজারভেটিভ পার্টির সব এমপি তাদের পছন্দের নেতা বেছে নেবেন।

Rishi Sunak or Liz Truss Who Will Be The Next PM Of UK Know How Britain New Prime Minister Name Announced bpsb
Author
First Published Sep 4, 2022, 12:04 PM IST

ব্রিটেনের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করা হবে সোমবার। কনজারভেটিভ পার্টির সদস্যরা শুক্রবার সন্ধ্যার মধ্যে তাদের নতুন নেতা বেছে নিতে ভোট দেন। সোমবার, বিদেশ সচিব লিজ ট্রাস এবং প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনকের মধ্যে কোনও একজন হবে ব্রিটেনের নতুন প্রাইম মিনিস্টার। বিজয়ী প্রার্থী বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের স্থলাভিষিক্ত হবেন। 

প্রধানমন্ত্রী পদের দুই প্রতিদ্বন্দ্বী কারা?

লিজ ট্রাস, যিনি প্রধানমন্ত্রী পদের দৌড়ে রয়েছেন, তিনি বর্তমান বিদেশ সচিব। একটি সরকারী স্কুলে পড়াশোনা করা ৪৭ বছর বয়সী ট্রাসের বাবা ছিলেন অঙ্কের অধ্যাপক এবং মা একজন নার্স। একটি শ্রমপন্থী পরিবার থেকে আসা, ট্রাস অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে দর্শন, রাজনীতি এবং অর্থনীতি নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। লেখাপড়া শেষ করে কিছুদিন অ্যাকাউন্ট্যান্ট হিসেবেও কাজ করেন। এরপর তিনি রাজনীতিতে আসেন। ট্রাস প্রথমবারের মতো এমপি নির্বাচিত হন ২০১০ সালে। ট্রাস প্রাথমিকভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়ার ইস্যুটির বিরুদ্ধে ছিলেন। পরে ব্রেক্সিটের নায়ক হিসাবে আবির্ভূত হওয়া বরিস জনসনকে সমর্থন করেন তিনি। ব্রিটিশ মিডিয়া প্রায়ই তাকে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মার্গারেট থ্যাচারের সঙ্গে তুলনা করে।

এই দৌড়ের দ্বিতীয় প্রতিযোগী হলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ঋষি সুনক। ৪২ বছর ধরে, সুনকের পরিবার মূলত পঞ্জাবের বাসিন্দা। তার বাবা-মা ১৯৬০-এর দশকে পূর্ব আফ্রিকা থেকে ব্রিটেনে চলে আসেন। তার বাবা একজন সাধারণ প্র্যাকটিশনার এবং মা ঊষা ছিলেন একজন ফার্মাসিস্ট যিনি একটি ফার্মেসি চালাতেন। সুনকের প্রাথমিক শিক্ষা ছিল ব্রিটেনের সবচেয়ে ব্যয়বহুল স্কুল উইনচেস্টার থেকে। ট্রাসের মতো, সুনকও অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দর্শন, রাজনীতি এবং অর্থনীতি নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। হেজ ফান্ড থেকে লক্ষ লক্ষ পাউন্ড উপার্জন করার পর ২০১৫ সালে প্রথমবারের মতো সাংসদ হন সুনক। এমপি হওয়ার পরপরই ব্রেক্সিট সমর্থক সুনককে ভবিষ্যতের নেতা হিসেবে দেখা হয়। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে, বরিস জনসনের জয়ের পর সুনককে অর্থমন্ত্রী করা হয়েছিল। ট্রাসের মতো সুনকেরও দুটি মেয়ে রয়েছে।

Rishi Sunak or Liz Truss Who Will Be The Next PM Of UK Know How Britain New Prime Minister Name Announced bpsb

কেন এবং কীভাবে নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন হচ্ছে?

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে তার দলের এমপিদের আস্থা হারিয়ে পদত্যাগ করতে হয়েছে। এরপর শুরু হয় দলে নতুন নেতা নির্বাচনের প্রক্রিয়া। কনজারভেটিভ পার্টিতে নেতা নির্বাচনের জন্য দুটি ধাপ রয়েছে। প্রথম ধাপে কনজারভেটিভ পার্টির সব এমপি তাদের পছন্দের নেতা বেছে নেবেন। যে প্রার্থী সবচেয়ে কম ভোট পান তিনি দৌড়ের বাইরে। দুইজন প্রার্থী না থাকা পর্যন্ত ভোট চলবে।

প্রাথমিকভাবে আটজন প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন। আইনপ্রণেতাদের ভোটের প্রথম দফার পরে, জেরেমি হান্ট এবং নাদিম জাহাভি বাদ পড়েন। সুয়েলা ব্রাভারম্যান দ্বিতীয় রাউন্ডের ভোটের পর বাদ পড়েছেন। এর পরে, টম তুগেনধাত এবং কামি ব্যাডেনোচ বাদ যান। পঞ্চম রাউন্ডে পেনি মর্ডেন্টের বিদায়ের পর ঋষি সুনক এবং লিজ ট্রাসই ছিলেন একমাত্র দুই প্রতিযোগী।

যখন মাত্র দুজন প্রার্থী বাকি থাকে, তখন দেশের সব দলের সদস্যরা তাদের ভোট দেন। পোস্টাল ব্যালটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া শেষ হয় দোসরা সেপ্টেম্বর। সোমবার তার ফল আসবে। এতে যিনি জয়ী হবেন তিনিই হবেন দলের নতুন নেতা। ব্রিটেনের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বরিস জনসনের স্থলাভিষিক্ত হবেন এই নতুন নেতা।

কার দাবি জোরালো?
সাংসদদের ভোটে এগিয়ে ছিলেন ঋষি সুনক। তবে দলীয় নেতাদের ভোটের সময় শুরু থেকেই ট্রাসকে জোরালো দাবিদার বলা হচ্ছে। সাম্প্রতিক ভোটে, ট্রাস ৫৯% ভোট পেয়েছেন। একই সময়ে সুনক পেয়েছেন মাত্র ৩২ শতাংশ ভোট। এই নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টির প্রায় ১.৬ লাখ নেতা ভোট দিয়েছেন। যা যুক্তরাজ্যের মোট ভোটারের প্রায় দেড় শতাংশ। ট্রাস জয়ী হলে মার্গারেট থ্যাচার ও থেরেসা মে-র পর তিনি হবেন তৃতীয় মহিলা যিনি ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হবেন। লিজ ট্রাস প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে, উভয় মহিলাও কনজারভেটিভ পার্টির ছিলেন।

Rishi Sunak or Liz Truss Who Will Be The Next PM Of UK Know How Britain New Prime Minister Name Announced bpsb

এর আগেও কি এ ধরনের নির্বাচন হয়েছে?

নেতৃত্বের জন্য এমন একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৯ সালে। তখন ১০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। বরিস জনসন এবং প্রাক্তন স্বাস্থ্য সচিব জেরেমি হান্ট প্রথম ধাপের ভোটের পরে বাকি দুই প্রার্থী ছিলেন। দ্বিতীয় পর্বে, যখন দলের সদস্যরা তাদের ভোট দেন, জনসন দুই-তৃতীয়াংশ ভোট পান।

ক্ষমতা হস্তান্তর কিভাবে হবে?

বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বিজয়ী নেতার কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন। ক্ষমতার এই হস্তান্তর সাধারণত লন্ডনের বাকিংহাম প্যালেসে হয়। এবার সেটা হবে স্কটল্যান্ডের বালমোরাল ক্যাসেলে। আসলে, রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ বর্তমানে স্কটল্যান্ডে তার গ্রীষ্মকালীন ছুটি উদযাপন করছেন। তার স্বাস্থ্যের অবনতি হওয়ায় জন সমক্ষে প্রকাশ্যে উপস্থিতি কমিয়ে দিয়েছেন। এই মুহূর্তে লন্ডনে ফেরার কোনো পরিকল্পনা নেই তার। এ কারণে ক্ষমতা হস্তান্তরের ঐতিহ্য ভেঙে গেছে।

ফলাফলের পর মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ১০ ডাউনিং স্ট্রিট থেকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেষ বক্তব্য দেবেন বরিস জনসন। এরপর তিনি স্কটল্যান্ডে যাবেন। সেখানে জনসন রানীকে তার পদত্যাগের কথা জানাবেন। এর পরে, সুনক এবং ট্রাসের মধ্যে যিনি বিজয়ী হবেন তিনি রানির সাথে দেখা করবেন। রানী তাকে সরকার গঠন করতে বলবেন। নতুন প্রধানমন্ত্রীর নিয়োগ রাজকীয় রেকর্ডে লিপিবদ্ধ করা হবে।

আনুষ্ঠানিক নিয়োগের সঙ্গে সঙ্গেই লন্ডনে ফিরে যাবেন নতুন প্রধানমন্ত্রী। এখানে ১০ ডাউনিং স্ট্রিট থেকে নতুন প্রধানমন্ত্রীর প্রথম ভাষণ হবে। লন্ডনের সময় অনুযায়ী বিকেল চারটার দিকে ভাষণ দেওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী তার নতুন মন্ত্রিসভা নিয়োগ করবেন। বুধবার নতুন মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। এরপর প্রধানমন্ত্রী প্রথমবারের মতো হাউস অব কমন্সে পৌঁছাবেন।

ঋষি সুনক-অক্ষতা মূর্তির প্রেম কাহিনি, পার হতে হয়েছিল অনেক কাঁটা বিছান পথ

'আমিও আইনজীবী, প্রয়োজনে কেসের জন্য আদালতে আসতে পারি', কলকাতা হাইকোর্টের অনুষ্ঠানে বললেন মমতা

অমিতাভ-রেখার গভীর প্রেম থাকলেও বিয়ে হয়নি এই দুটি কারণে, প্রাচীর হয়ে দাঁড়িয়ে ছিল ভাগ্য

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios