২০১৯-২০২০ বাজেটে সরকার ঘোষিত 'কিষান রেল'-এর আওতায় এখন অবধি দেশজুড়ে ১৮ টি রুটে কিসান রেল চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে স্বল্প পরিবহন ব্যয়ে কৃষকরা যে ফলমূল ও শাকসব্জি উৎপাদন করেন সেগুলি দেশের বড় শহরগুলিতে পৌঁছচ্ছে। ২০২০-২১ এর বাজেট ঘোষণার পরে, গত বছরের অগাস্টে, কিসান রেল এই রুটে চালানো হয়েছিল এবং এখনও পর্যন্ত ১৮ টি রুটে এই ট্রেন চলছে।

আরও পড়ুন- Budget 2021-22 Live- আজ সাধারণ বাজেট, বাজার চাঙ্গা করা থেকে গরিবের হাতে অর্থে কোন দাওয়াই নির্মলার ...

গত বছরের ৭ অগাস্টে কিসান রেলটি দেবলালী থেকে দানাপুর পর্যন্ত চালু হয়েছিল। তারপরে অনন্তপুর থেকে দিল্লির আজাদপুর পর্যন্ত চালু হয়। এরপর ১৯ সেপ্টেম্বর যশবন্তপুর থেকে দিল্লির নিজামউদ্দিন পর্যন্ত চালু হয়। নাগপুর থেকে দিল্লির আজাদপুরে চালু হয় ১৪ অক্টোবরে। চণ্ডিওয়ারা থেকে হাওড়া পর্যন্ত চালু হয় ২৮ অক্টোবর। এরপর সাঙ্গোলা থেকে হাওড়া পর্যন্ত চালু হয় ২৯ অক্টোবরে। ২১ নভেম্বর থেকে সাঙ্গোলা থেকে শালিমার পর্যন্ত এবং ২৪ নভেম্বর ইন্দোর থেকে গুয়াহাটি পর্যন্ত এই রেল চালু হয়। ৫ ডিসেম্বর রতলাম থেকে গুয়াহাটি পর্যন্ত, এবং ২৭ ডিসেম্বর ইন্দোর থেকে আগরতলা পর্যন্ত চালু হয়। ৩১ ডিসেম্বর জলন্ধর জাইরনিয়া থেকে নাগাসোল থেকে গুয়াহাটি পর্যন্ত ৫ জানুয়ারিতে চালু হয়। ৭ জানুয়ারি নগরসোল থেকে চৈতপুর পর্যন্ত এই রেল চালু হয়। এরপর ১০ জানুয়ারি নগরসোল থেকে জলপাইগুড়ি পর্যন্ত এই রেল চলে। ১১ জানুয়ারি নগরসোল থেকে নওগাছিয়া পর্যন্ত চালু হয়। ১৩ জানুয়ারিতে নাগরসোল থেকে ফতুহা, ১৯ জানুয়ারিতে নগরসোল থেকে ভাটিন্ডা এবং ২০ জানুয়ারি কিশোর রেল রয়েছে, মালদা টাউন রুটে শুরু হয়ে এই কিষান রেল।

আরও পড়ুন- বাজেটের আগের রাতেই সুখবর অর্থমন্ত্রকের ঘরে, রেকর্ড গড়ল GST আদায় ...

 

কৃষকদের এই কিসান রেলের মাধ্যমে ফল ও সবজি পরিবহনের ক্ষেত্রে ৫০ শতাংশ ছাড় দেওয়া হয় এবং এই ট্রেনগুলির টাইম টেবিল কঠোরভাবে মেনে চলা হয়। এখন পর্যন্ত এই ট্রেনগুলির মোট ১৫৭ টি রাউন্ড সম্পন্ন হয়েছে এবং এর মাধ্যমে ৪৯০০০ টনেরও বেশি পেঁয়াজ, টমেটো, আলু, কমলা, ডালিম, কলা, গাজর, ক্যাপসিকাম এবং অন্যান্য শাক-সবজি পরিবহন করা হয়েছে।