পত্রলেখা বসু চন্দ্র, বর্ধমান:  ডিজিটালে যুগেও মধ্যযুগীয় কুসংস্কার! ডাইনি অপবাদে মহিলাকে গ্রামছাড়া করার নিদানকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমারকাণ্ড। বিক্ষোভের মুখে পড়লেন পুলিশকর্মীরাও। চলল পথ অবরোধ। ঘটনাস্থল, পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রাম।

আরও পড়ুন: জলঙ্গীতে NIA হানা দিতেই পালাল সপ্তম জঙ্গি, ধৃত ৬ জঙ্গিকে দিল্লিতে জেরার সম্ভাবনা

জানা গিয়েছে, আউশগ্রামের দিগনগর আদিবাসী পাড়ায় যাঁরা বসবাস করেন, তাঁদের বেশিভাগই হতদরিদ্র। জনমজুরি করে দিন গুজরান করেন তাঁরা। মঙ্গলবার মনসা পুজো ছিল গ্রামে। স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশের দাবি, সেদিন নদীতে স্নান সেরে ফেরার পর অস্বাভাবিক আচরণ করতে শুরু করেন বুধিন বাস্কে নামে এক মহিলা। খাওয়াদাওয়া  ছেড়ে দিয়ে গ্রামের ঠাকুরতলায় টানা পাঁচদিন হত্যে দিয়ে পড়েছিলেন তিনি। কী ব্যাপার? গ্রামবাসীদের ধারণা হয়, বুধিনের উপর নাকি দেবতা ভর করেছে! এরপর রবিবার সকলের সামনে তিনি ঘোষণা করেন, আদিবাসী পাড়ার এক মহিলা ডাইনি। তাঁকে না তাড়ালে এলাকায় বিপদ ঘনিয়ে আসবে। ব্যস আর যায় কোথায়!

আরও পড়ুন: স্টেশনের প্লাটফর্ম থেকে যুবকের রক্তাক্ত দেহ উদ্ধারে রহস্য, খুনের অভিযোগ পরিবারের

বুধিন বাস্কে নিদান দেওয়ার পরেই তৎপর হয়ে ওঠেন গ্রামবাসীরা। যে মহিলাকে 'ডাইনি' অ্যাখ্যা দেওয়া হয়, সেই মহিলার বাপের বাড়িতে ফোন করা হয়। ফোনে বলা হয়, অবিলম্বে যেন ওই মহিলাকে গ্রাম থেকে নিয়ে চলে যান তাঁরা। কিন্তু বাপের বাড়ির লোকের সেকথা শোনেননি। আর তাতেই ধৈর্য্যের বাঁধ ভাঙে স্থানীয় বাসিন্দাদের। এরপর তাঁরা নিজেরাই ওই মহিলাকে গ্রামছাড়া করার উদ্যোগ নেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। অভিযোগ, ওই মহিলাকে উদ্ধার করতে গেলে বাধার মুখে পড়েন পুলিশকর্মীরা। পুলিশের গাড়ি ঘেরাও করে রাখা হয় দীর্ঘক্ষণ। অবরোধ শুরু হয়ে যায় গুসকরা-মানকর রোডে। দিনভর অশান্তির চলার পর সন্ধের দিকে যখন বর্ধমান থেকে র‍্যাফ ও অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী পৌঁছয় গ্রামে, তখন পুলিশকর্মীদের লক্ষ্য তির ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ। পাল্টা কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে পুলিশও। শেষপর্যন্ত অবশ্য ওই মহিলাকে উদ্ধার করা গিয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে চারজনকে।