স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া তার গ্রাহকদের জন্য অনলাইন পরিষেবা ব্যবহারের ক্ষেত্রে এই বিশেষ নির্দেশিকা জারি করেছে। এসবিআই এর তরফ থেকে ৬ টি সতর্কতা গ্রাহকদের অবশ্যই মেনে চলার জন্য বিশেষ অনুরোধ করা হয়েছে। গ্রাহক সুরক্ষার জন্য একটি বিবৃতিতে ছয়টি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যা গ্রাহকরা অবশ্যই অনলাইন ব্যাংকিংয়ের সময় অনুসরণ করা প্রয়োজন বলে জানানো হয়েছে। নিরাপদ ব্যাঙ্কিংয়ের জন্যই এই বিশেষ বিজ্ঞপ্তি।

আরও পড়ুন- লকডাউনে ফিট থাকতে প্রতিদিন যা খাবেন, রইল তালিকা .

অনলাইনে ব্যাংকিংয়ের সময় এসবিআই গ্রাহকরা যে ৬টি বিষয় নজরে রাখবেন-

১) এসবিআই গ্রাহকদের ইএমআই বা ডিবিটি বা তহবিলের সঙ্গে সম্পর্কিত যে কোনও লিঙ্কে ওটিপি বা ব্যাঙ্কের বিশদ জানতে চাইলে ক্লিক না করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। এর আগেও এসবিআই গ্রাহকদের ইএমআই কেলেঙ্কারি সম্পর্কে আগে থেকেই সতর্ক করেছিল ব্যাঙ্ক।

২) এসএমএস, ই-মেইল, ফোন কল বা বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে নগদ পুরষ্কার বা চাকরির সুযোগ দেওয়ার দাবি করে কোন লিঙ্ক পাঠালে তা ক্লিক করবেন না। 

৩) সময়ে সময়ে সমস্ত ব্যাংক সম্পর্কিত পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করুন। প্রয়োজনে নিজস্ব গোপনীয়তা বজায় রেখে কোথাও লিখে রাখুন।

আরও পড়ুন- করোনা আতঙ্কের বাজারে সবজি কেনার সময় অবশ্যই মনে রাখুন এই বিষয়গুলি

৪)  মনে রাখবেন যে এসবিআই বা এর প্রতিনিধিরা কখনই ইমেল, এসএমএস এর মাধ্যমে গ্রাহকদের ব্যক্তিগত তথ্য জানতে চায় না। পাসওয়ার্ড বা ওটিপির জন্য কল করে না।

৫) যোগাযোগের নম্বর এবং অন্যান্য তথ্যের জন্য সর্বদা কেবল এসবিআইয়ের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ব্যবহার করুন। ইন্টারনেট অনুসন্ধান ফলাফলগুলিতে উপলব্ধ কোনও ব্যাঙ্কের তথ্যের উপর নির্ভর করবেন না।

 

৬) স্ক্যাম বা ভুয়ো সংক্রান্ত কোনও ফোন পেলে সেই সম্পর্কে স্থানীয় পুলিশ কর্তৃপক্ষকে তাৎক্ষনাত রিপোর্ট করুন এবং আপনার নিকটস্থ এসবিআই শাখায় তা জানান।

এর আগে এসবিআই তার গ্রাহকদের সাইবার ক্রাইমের নতুন উপায় সম্পর্কে সতর্ক করেছিল যা প্রতারকদের দ্বারা প্রেরিত বার্তাগুলি হুবহু এসবিআই নেট ব্যাংকিং পৃষ্ঠার মতো দেখতে। এর ফলে বহু গ্রাহক এই নকল অ্যাপগুলির দ্বারা প্রভাবিত হন। এর আগে এসবিআই ইএমআই জালিয়াতি স্কিম সম্পর্কেও মানুষকে সতর্ক করেছিল। স্ক্যামাররা গ্রাহকদের ইএমআই পেমেন্ট আর্থিক তছরূপের জন্য এসবিআই কার্ডের বিশদ এবং শেষ পর্যন্ত ওটিপি সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে। এই বিষয়ে গ্রাহকদের বিশেষ সচেতনতা অবলম্বন করা প্রয়োজন।