সারা বিশ্ব জুড়ে দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে করোনা ভাইরাস। আর এই মারণ ভাইরাসের জেরে বড় ধাক্কা  পড়েছে ব্যবসা-বাণিজ্যের উপর। মারণ ভাইরাস মহামারি আকার নেওয়ার পর থেকেই তার প্রভাব পড়েছে বড় বড় ধনকুবেরদের উপর। এশিয়ার ধনীতম তালিকার ফের এক নম্বরে রিল্যায়েন্স চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানি। ফেসবুক-জিওর চুক্তির পর এশিয়ার ধনীদের তালিকায় প্রথম স্থানে রয়েছে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানি।

আরও পড়ুন-নতুন অংশিদার পেয়েই বড় ঘোষণা, হোয়াটসঅ্যাপের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ই-কমার্সে নয়া পদক্ষেপ জিও-র...

আলিবাবা প্রতিষ্ঠাতা জ্যাক মা-কে সরিয়ে ধনীদের তালিকায় সবার শীর্ষে উঠে আসলেন মুকেশ আম্বানি। ফেসবুকের সঙ্গে নয়া চুক্তির পরেই পুরো মোড় ঘুরে গিয়েছে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের। জিও- ফেসবুক চুক্তি দেশের অন্যতম বড় চুক্তির মধ্যে অন্যতম। ভারতে নয়া সম্ভাবনার দরজা খুলতে চলেছে এই চুক্তি। ডিজিটাল দুনিয়ায় এক নতুন রেকর্ড তৈরি করল এই জিও-ফেসবুক চুক্তি। আর তারপরই এশিয়ার ধনীদের তালিকার সবার শীর্ষে এবার মুকেশ আম্বানি।

আরও পড়ুন-দেশের অন্যতম বাণিজ্যিক চুক্তি, ৫.৭ বিলিয়ন ডলারে জিওর ৯.৯ শতাংশ শেয়ার কিনল ফেসবুক সংস্থা...


ফেসবুক -জিওর চুক্তির ফলে ৪০০ কোটি ডলার বেড়েছে মুকেশ আম্বানির। বর্তমানে ৪,৯০০ কোটি ডলারের মালিক মুকেশ আম্বানি। জ্যাক মা-এর থেকে ৩০০ কোটি বেশি ডলার রয়েছে মুকেশের। দীর্ঘদিন ধরেই এশিয়ার সেরা ধনীর তালিকায় নিজের জায়গা ধরে রেখেছিলেন রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান মুকেশ আম্বানি। কিন্তু করোনা মহামারীর  কারণে মুকেশের জায়গায় চলে আসেন চিনের অনলাইন মার্কেটের বাদশা জ্যাক মা। আর  এই করোনার মধ্যেই গোটা বিশ্বকে চমকে দিয়ে ফেসবুকের সঙ্গে গাটছড়া বাধে জিও। এই নয়া চুক্তির পরই ফের শীর্ষে চলে এসেছেন মুকেশ আম্বানি। উল্লেখ্য,করোনা ভাইরাসের প্রভাব পড়েছিল মুকেশ আম্বানির কোষাগারে। মাত্র ২ মাসেই তার সম্পত্তির পরিমাণ কমেছে ২৮ শতাংশ।  যার ফলে ধনীদের তালিকায়  অনেকটাই নীচে নেমে এসেছিলেন মুকেশ আম্বানি। সমীক্ষার তালিকায় নিজের জায়গা থেকে ৮ ধাপ নীচে নেমে ১৭ তম স্থানে ছিলেন রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের কর্ণধার মুকেশ আম্বানি। করোনার জেরে প্রায় ১.৫ লক্ষ কোটি টাকার সম্পত্তির পরিমাণ কমেছিল মুকেশ আম্বানীর।