একের পর এক পরিবর্তন হয়েই চলেছে ফেসবুকে। সম্প্রতি ফেসবুকের পক্ষ থেকে জানা গেছে ভারত সহ বিভিন্ন দেশে ফেসবুক নিউজ লঞ্চ হতে চলেছে। আগামী ছয় মাস থেকে একবছরের মধ্যেই ভারত, জার্মানি, ফ্রান্স, ব্রাজিল সহ আর বেশ কয়েকটি দেশে এই ফেসবুক নিউজ লঞ্চ করতে চলেছে।সম্প্রতি করা এক ব্লগ পোস্টে ফেসবুকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্যাম্পবেল ব্রাউন দাবি করেছেন, ফেসবুক অ্যাপে শুধুমাত্র এতদিন খবর দেখতে পেতেন  মার্কিন মুলুকের ব্যবহারকারীরা। এবার  সেই পরিধি বাড়ানোর কথা ভাবছেন ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। কিছুদিনের মধ্যেই ভারত ও সহ বেশ কয়েকটি দেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের নির্দিষ্ট খবর দেখানোর পরিষেবা চালু করার কথা ভাবছেন ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। শুধু তাই নয়, দেশের যে সূত্র থেকে খবর আসবে, তাদেরকেই  উপযুক্ত পারিশ্রমিক দেবেন ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

 

চলতি বছরের জুন মাসেই গ্রাহকদের জন্য মার্কিন মুলুকে এই 'নিউজ স্ট্রিমিং' পরিষেবা চালু করেছে ফেসবুক। ব্রাউন জানিয়েছেন, 'ফেসবুকে প্রত্যেক ব্যবহারকারীর সার্চ প্যাটার্ন বুঝেই দিনের টপ হেডলাইন এবং খবর পৌঁছে দেওয়াই আমাদের লক্ষ্য। পাশাপাশি সংবাদমাধ্যমগুলিকে আরও বেশি করে পাঠকের কাছে পৌঁছে দেওয়াই আমাদের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য ছিল। তবে ৯৫ শতাংশ ক্ষেত্রেই দেখা গিয়েছে, ফেসবুক নিউজের মাধ্যমে সংবাদমাধ্যমগুলির প্রকাশিত  বিভিন্ন এক্সক্লুসিভ খবর আরও চটজলদি পাঠকের কাছে দ্রুত পৌঁছে যাচ্ছে। এই পরিষেবা যদি ঠিকমতো সফল হয় তবে আগামী দিনে আরও বেশি করে সমস্ত দেশের গ্রাহকের কাছেই 'নিউজ স্ট্রিমিং' পরিষেবা পৌঁছে দিতে চাই আমরা।'

আরও পড়ুন-ভোডাফোন-আইডিয়াকে 'শোকজ' নোটিশ ধরাল 'ট্রাই', বিতর্কিত প্ল্যানেই বিপাকে টেলিকম সংস্থা...

কিছুদিন আগেও এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছিল অস্ট্রেলীয় সরকার। তাদের দাবি ছিল, সব জায়গার খবর নিয়ে নিজেদের প্ল্যাটফর্ম ভরছে গুগল আর ফেসবুক। সেই খবর দেখিয়ে একই সঙ্গে বিপুল অঙ্কের বিজ্ঞাপনী প্রচারও সেরে ফেলছে তারা। যে উৎস থেকে খবর আসছে তার নামটুকুই শুধু সাইটে দেওয়া থাকছে। তার পরিবর্তে যোগ্য পারিশ্রমিক মিলছে না। অস্ট্রেলিয়া সরকারের তরফে আরও জানানো হয়েছে, গুগল-ফেসবুক সহ যে কোনও সংস্থাই স্থানীয় কোনও সংবাদমাধ্যমের খবর ব্যবহার করলে তার জন্য নির্দিষ্ট মূল্য দিতে হবে। এই ধরনের উদ্যোগের বিরোধী ছিলেন ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। প্রয়োজনে অস্ট্রেলিয়ার বাজার ছাড়তেই রাজি তারা। কিন্তু  ফেসবুকের এই নয়া ঘোষণায় বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশ দাবি করছেন, পাঠকের সার্চ প্যাটার্ন বুঝে নিয়ে তাদেরকে নির্দিষ্ট খবর পৌঁছে দিলে ব্যক্তি-স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হবে বলে মনে করছেন তারা। উল্লেখ্য চলতি বছরের এপ্রিল মাসেই ফ্রান্সের কম্পিটিশন রেগুলেটর কর্তৃপক্ষের তরফে এক নির্দেশিকা জারি করে জানানো হয়েছিল, ইউরোপে চালু হওয়া নয়া ডিজিটাল কপিরাইট আইন মেনে গুগলকে সংবাদসংস্থার খবর ব্যবহার করলে তার জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ সংবাদসংস্থাকে দিতেই হবে।