করদাতাদের সুবিধার্থে নতুন ই-ফাইলিং পোর্টাল চালু করছে আয়কর দফতর। ৭ জুন থেকে এই নয়া পোর্টাল চালু হবে। এরপর আয়করদাতারা www.incometax.gov.in ওয়েবসাইটে গিয়ে নিজেদের কাজ করতে পারবেন। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক নতুন পোর্টালে, কী কী সুবিধা পাবেন আয়করদাতারা।

১) ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন জমা দেওয়ার সময় কোনও ফর্ম ফিলআপ করার প্রয়োজন নেই। তার পরিবর্তে কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার মাধ্যমেই রিটার্ন জমা পড়ে যাবে। ফর্ম ভর্তি করার সময় অনেকেই সমস্যার সম্মুখীন হয়। তাঁদের ক্ষেত্রে এটি উপকারী। 

আরও পড়ুন- জানেন কি, প্রতিমাসে নূন্যতম ১০০ টাকা করে জমালেই মিলবে মোটা অঙ্কের রিটার্ন

২) আয় সম্পর্কিত তথ্য জমা দেওয়ার জন্য এতদিন বিভিন্ন ব্যাঙ্কের স্টেটমেন্ট যাচাই করতে হত। তবে এখন আর তার কোনও প্রয়োজন নেই। এই নতুন পোর্টাল নিজেই আপনার ব্যাঙ্ক থেকে যাবতীয় তথ্য নিয়ে নেবে। আপনাকে শুধু সেই তথ্যগুলিকে একবার দেখে নিতে হবে। 

৩) শেয়ার কেনার সময় আপনার যে ডিভিডেন্ট ইনকাম হয় তার তথ্য আগে থেকেই পোর্টালে থাকবে। এছাড়া শেয়ার বেচার সময় আপনার যা লাভ বা লোকসান হবে তার তথ্য জমা দেওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। 

৪) এমন বিনিয়োগ যাতে আয়করে ছাড় পাওয়া যাবে যেমন বিমা, পিপিএফের মতো তথ্যও আপনার রিটার্নে আগে থেকেই দেওয়া থাকবে।

৫) করদাতাদের সহায়তার জন্য, লাইভ এজেন্ট চ্যাট সুবিধা, FAQs, ভিডিও সহ করদাতাদের প্রশ্নের উত্তর ইত্যাদি বিশেষ সুবিধা পাবেন।

৬) পোর্টালটির সমস্ত মূল অপশনগুলির সুবিধা মিলবে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনেও।

৭) নতুন পোর্টালে অনলাইন ট্যাক্স পেমেন্ট সিস্টেমেও বদল করা হয়েছে। UPI, নেট ব্যাংকিং, RTGS/NEFT ইত্যাদি একাধিক সুবিধা চালু করা হয়েছে। আর পেমেন্টের তথ্য শীঘ্রই চলে আসবে আপনার কাছে। আগে এরজন্য এক-দু দিন অপেক্ষা করতে হত।

এই পোর্টাল ব্যবহার করার খুবই সহজ। কারণ এই পোর্টাল খোলা মাত্রই তার প্রথম পাতায় আয়কর রিটার্ন সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য দেওয়া থাকবে। এছাড়া একটি পোর্টালের মধ্যে আয়কর সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য পেয়ে যাবেন তাঁরা। এই পোর্টাল ছাড়া আর কোনও ওয়েবসাইটে তাঁদের যাওয়ার প্রয়োজন নেই। 

করোনা পরিস্থিতির মধ্যে করদাতাদের স্বস্তি দিয়ে ব্যক্তিগত আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার সময়সীমা বাড়িয়েছে কেন্দ্র। ৩১ জুলাইয়ের পরিবর্তে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।