এক প্রসুতির মৃত্যু আর তাতেই তোলপাড় শুরু হয়ে যায় উত্তর দিল্লির ভগবান মহাবীর হসাপতালে। বুধবার রাতে ওই প্রসুতির মৃত্যু হয়। তবে মৃত্যু আগে মহিলা জানিয়ে গিয়েছিলেন তিনি সম্প্রতী বিদেশ থেকে ফিরেছেন। আর একাধিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে এসেছেন। আর ২৫ বছরের ওই মহিলার মৃত্যুর পরই হাসপাতালের ৬৮ জন চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মীকে আপাতত বাড়িতেই কোয়ারেন্টাইনে থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় রীতিমত আতঙ্কিত হাসপাতাসের ভর্তি বাকি রোগীরা। 

হাসপাতালে প্রায় ২০০ জন রোগীর চিকিৎসা চলছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মহিলা মিথ্যা তথ্য দিয়ে হাসাপাতালে ভর্তি হয়েছিল। তাই আলাদা কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। 

উত্তর দিল্লির জেলা শাসকও জানিয়েছেন নিজের সম্প্রতী বিদেশ ভ্রমণের ইতিহাস গোপন করেছিলেন ওই মহিলা। তাই বিশেষ কোনও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা না নিয়ে বাড়িতেই হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছিল তাঁকে। তথ্য গোপন করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন বলেও অভিযোগ করেছে জেলাশাসক। 

হাসপাতাল সূত্রে জানান হয়েছে, বুধবার মহিলার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। তখন গর্ভাবতী মহিলার ভেন্টি লেটারের প্রয়োজন হয়। সেই সময়ই মহিলা প্রকাশ্যে আনেন তাঁর বিদেশ ভ্রমণ ও করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসার কথা। পাশাপাশি মহিলা আরও জানিয়েছিলেন,তাঁর পরিবারের চার সদস্যকেও ১০ থেকে ২৪ এপ্রিল কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ ওঁদের চোখের জল মিশে গিয়েছিল যমুনায়, লকডাউনের দিল্লিতে ৪ দিন কেটেছে খোলা আকাশের নিচে ..
আরও পড়ুনঃ উদ্বিগ্ন অমর্ত্য সেন, অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় আর রঘুরাম রাজনের চিঠি, দরিদ্রের জীবনে ভয়ঙ্কর প্রভাব ফেলছ...
আরও পড়ুনঃ ভারতের ৩২৫ জেলাই সবুজ জোনে পড়ছে, করোনাভাইরাস নিয়ে রীতিমত আশার আলো দেখাল স্বাস্থ্য মন্ত্রক ...
এই তথ্য সামনে আসার পরই তাঁর সংস্পর্শে আসা হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স আর স্বাস্থ্য কর্মীদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মৃত মহিলার নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠান হয়েছে। রিপোর্ট আসার পরই জানা যাবে মৃতার শরীরে করোনার জীবানু ছিল কিনা। এদিন স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ীয়  দিল্লিতে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দেড় হাজার। এখনও পর্যন্ত ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে।