করোনার মাঝে ভোট নিয়ে কম বিতর্ক হয়নি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের মাঝে বাংলায় শেষ কয়েকটা দফার ভোট করতে বেশ সমস্যা হয়েছিল নির্বাচন কমিশনের। পশ্চিমবঙ্গ, অসম, কেরল সহ দেশের পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের সময় করোনার মাঝে ভোট হয়েছিল উত্তর প্রদেশের পঞ্চায়েতেও। দেখা গেল যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোটের পর করোনা কেসের সংখ্যা বহু গুণ বেড়ে গিয়েছে। হিসেব বলছে, উত্তর প্রদেশের পঞ্চায়েত ভোট শেষ হওয়ার এক মাসের মধ্যে কোভিড কেসের সংখ্যা ১২০ শতাংশ বেড়ে গিয়েছে। পঞ্চায়েত নির্বাচনে জিততে ইউপি-তে সব পক্ষই কোমর বেঁধে নেমেছিল। জোর নির্বাচনী প্রচার হয়েছিল, হয়েছিল বড় জনসভা, মিটিং-মিছিল। 

আরও পড়ুন: 'প্লাস্টিক গলে সমস্যা', মেরামতির জন্য আগামী ৪৮ ঘন্টা বন্ধ নিমতলা মহাশ্মশান

আরও পড়ুন: মোদীকে ফের চিঠি মমতার, এবার দাবি করোনার ওষুধে করছাড়

চার দফা চলায় এই পঞ্চায়েত ভোটে ৯ কোটি ভোটের অংশ নিয়েছিলেন। ২ লক্ষ বুথে ১২ লক্ষ সরকারী কর্মচারী ও নিরাপত্তারক্ষীদের মাধ্যমে ভোট নেওয়া হয়েছিল উত্তর প্রদেশ। এসবের পর দেখা গেল করোনা সংক্রমণের সংখ্যা এক লাফে বেড়ে গেল যোগী রাজ্যে। কেসের সংখ্যা অত্যধিক বাড়ায় উত্তর প্রদেশে লকডাউন চলছে।

পঞ্চায়েত ভোটের পর উত্তর প্রদেশে ঠিক কতটা বেড়েছে সংক্রমণ? হিসেব বলছে,গত বছর ৩০ জানুয়ারি থেকে চলতি বছর ৪ এপ্রিল পর্যন্ত এই ১৫ মাসে উত্তর প্রদেশে করোনা সংক্রমণের কেস ছিল ৬.৩ লক্ষ। সেখানে গত এক মাসে (৪ এপ্রিল-৪ মে) যোগী রাজ্যে ৮ লক্ষ নয়া কোভিড সংক্রমণের কেস এসেছে ইউপি-তে।