সারা দেশে একটানা ২১ দিনের লকডাউনের ব্যবস্থা নিয়েছে সরকার। প্রত্যেকেই কোভিড-১৯-এর জেরে গৃহবন্দি। সারা বিশ্ব জুড়ে দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে করোনা ভাইরাস।  আর এই মারণ ভাইরাস আটকাতে বিভিন্ন জিনিসের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। যদিও সকলেই যে সরকারের নিয়ম মতো এই লকডাউন মেনে চলছেন তেমনটাও নয়। নিজের ইচ্ছামতোই সবটা করে যাচ্ছেন অনেকেই। আর এবার তার প্রমাণ মিলল হাতেনাতে।

আরও পড়ুন-করোনায় ধুঁকছে ভারতের অর্থনীতি, ৩৫ শতাংশ বেতন কমিয়ে আশঙ্কা আরও বাড়াল দেশের নামী সংস্থা...

সম্প্রতি একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে ড্রোনের মাধ্যমেই প্রয়োজনীয় খদ্দেরের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে যাচ্ছে তামাকজাত দ্রব্য গুটকা, পানমশালা। ড্রোনের সঙ্গে বেধেই সেই সমস্ত দ্রব্যাদি বেধে দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজন মতো সেই পানমশালা বাড়ির ছাদে পৌঁছে দিচ্ছে ড্রোন। মুহূর্তের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে। দেখে নিন ভিডিওটি।
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 

ગુજરાતીઓ પાન-મસાલા માટે કંઈપણ કરી શકે તે ફરી એકવાર સાબિત થઈ ગયું....કોરોનાની આ મહામારીના સમયમાં પણ મોરબીમાં ડ્રોનથી મસાલો લેવામાં આવ્યો.. પોલીસને જાણ થતાજ કારવાઈ કરવામાં આવી છે.... આવું જોખમ ના ખેડો🙏 Courtesy:- Social Media #morbi #lockdown2020 #lockdown #panmasala #gujaratpolice #ahmedabad #rajkot #surat #baroda #gujju #gujjuthings #gujjugram #gujju_vato #gujjustyle #gujjuworld #gujjuwood #gujjuness #gujjuchu #drone #dronephotography #dronestagram #tiktok #tiktokgujju

A post shared by પારકી પંચાત (@parki_panchat) on Apr 11, 2020 at 10:33pm PDT






আরও পড়ুন-ডিপার্টমেন্টাল স্টোর বাড়াচ্ছে সংক্রমণের আশঙ্কা, খোলা বাজারকেই ভোট বিশেষজ্ঞদের...

আরও পড়ুন-করোনায় ধুঁকছে ভারতের অর্থনীতি, ৩৫ শতাংশ বেতন কমিয়ে আশঙ্কা আরও বাড়াল দেশের নামী সংস্থা...


আরও পড়ুন-করোনার গ্রাসে প্রায় অর্দ্ধেক ভারত, দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ৯ হাজারের গণ্ডি...

করোনার জেরে ইতিমধ্যেই তামাকজাত পণ্য, মদের দোকান সমস্ত বন্ধ রাখা হয়েছে। কিন্তু যাদের নেশা করতেই হবে তারা কিন্তু যে কোনও উপায়েই সেটা করছে। আর তারই প্রমাণ মিলল এই ভিডিওটিতে। ঘটনাটি ঘটেছে গুজরাটের মরবি শহরে। পানমশালার জন্য গুজরাট যেটা চায় সেটাই করতে পারে। তা আবারও প্রমাণ করে দেখিয়ে দিল। ইতিমধ্যেই সারা বিশ্ব জুড়ে দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে করোনা ভাইরাস। যতদিন যাচ্ছে হু হু বেড়েই চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। এহেন পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েও এরা নিজেদের কাজ ঠিক চালিয়ে যাচ্ছে। এদিকে গুজরাটে গুটখা, পানমশালার প্রোডাকশন বন্ধ, কারখানা বন্ধ, আমদানি-রপ্তানি  সবকিছুই শিকেয় উঠেছে। শুধু তাই নয় গুজরাটের সমস্ত জায়গাতেই নিষিদ্ধ করা হয়েছে এই তামাকজাত পন্য। তারপরই রমরমিয়ে সেইসব নিষিদ্ধ উপাদান সরবরাহ চলছে।ভিডিওটি ভাইরাল হতেই পানমশালা মালিককে গ্রেফতার করা হয়েছে।