বিশ্বের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এদেশেও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ইতিমধ্যে তা ছুঁয়ে ফেলেছে ৫০০ গণ্ডি। পরিস্থিতি যেদিকে যাচ্ছে তাতে অদূর ভূবিষ্যতে আক্রান্তের সংখ্যা কয়েকগুণ বাড়বে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। যার ফলে সরকারি হাসপাতালগুলিতে স্থান সঙ্কুলানের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এই পরিস্থিতিতে এগিয়ে এলেন রিলায়েন্স ইন্ড্রাস্টিজের কর্ণধার মুকেশ অম্বানি। শুধুমাত্র করোনা রোগীদের চিকিৎসরা জন্য  করোনা হাসপাতাল তৈরি করলেন দেশের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি।

দেশজুড়ে যেভাবে করোনা মহামারীর আকার নিয়েছে তাতে ক্রমেই ঘনাচ্ছে আশঙ্কার মেঘ। তার মধ্যেই করোনা মোকাবিলায় রিলায়েন্স ইন্ড্রাস্টিজ বেশ কিছু ঘোষণা করেছে। যার মধ্যে রয়েছে প্রতিদিন  এক লক্ষ মাস্ক তৈরি করা, বিনামূল্যে জ্বালানি দেওয়া হবে আপৎকালীন ভিত্তিতে করোনা রোগী বহনকারী গাড়িকে। দেশের বিভিন্ন শহরে যাতে মহামারির কারণে ভীষনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাঁ দের বিনামূল্যে খাদ্য সরবরাহ। এছাড়া অবশ্যই করোনা আক্রান্তদের জন্য হাসপাতাল তৈরি। 

১২৪ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম, অবশেষে করোনা আতঙ্কে স্থগতি হল টোকিও অলিম্পিক

ম্যালেরিয়ার ওষুধে ৬ দিনেই করোনা নিরাময়, এখনও ধন্দে গবেষকরা

করোনা আতঙ্কের মাঝেই আশার আলো, মারণ রোগ প্রতিরোধ করতে নতুন দিশা দিচ্ছে সুপার কম্পিউটার

শুধুমাত্র করোনা সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য তৈরি করা হয়েছে  রিলায়েন্সের করোনা-হাসপাতাল ৷ দেশের প্রথম এই করোনা হাসপাতাল তৈরি হতে সময় লেগেছে মাত্র দু’সপ্তাহ ৷  গত সোমবার মুম্বইতে উদ্বোধন হল রিলায়েন্সের এই করোনা হাসপাতালের ৷ করোনা সংক্রমণের চিকিৎসার জন্য সমস্ত প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো সহ তৈরি করা হয়েছে এই হাসপাতাল ৷ বর্তমানে এখানে একসঙ্গে ১০০ জন করোনা আক্রান্তের চিকিৎসা সম্ভব ৷ মহারাষ্ট্রের লোধিভালিতে এই আইসোলেশন তৈরি করেছে  রিলায়েন্স ৷

দেশের এই সংকটজনক পরিস্থিতিতে কাজ বন্ধ থাকলেও অস্থায়ী কর্মীদের বেতন দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছে রিলায়েন্স ইন্ড্রাস্টিজ। এছাড়া মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ৫ কোটি টাকা অনুদানও দিয়েছে সংস্থাটি। পাষাপাশি করেনা 'হারেগা, ভারত জিতেগা' উদ্যোগও শুরু করেছে মুকেশ অম্বানির সংস্থাটি। পাশাপাশি বিদেশ থেকে করোনা চিকিৎসার জন্য এক লক্ষ কিটও আনাচ্ছে রিলায়েন্স। এদিকে  ঘরে বসে যাতে সবাই কাজ করতে পারেন সেজন্য নেট পরিষেবাও যথাযথ চলবে বলে ঘোষণা করেছে জিও।