করোনা রোগীর মৃত্যুতে উত্তাল উলুবেড়িয়া হাসপাতাল চত্বর। উলুবেড়িয়া সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে চিকিৎসার গাফিলতির অভিযোগ তুলে সরব মৃতের পরিবার। হাসপাতাল ভাঙচুর চালান উত্তেজিত আত্মীয় পরিজনেরা। খবর পেয়ে বিশাল পুলিশ বাহিনী এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। 

আরও পড়ুন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে হোম আইসোলেশনে ব্রাত্য বসু, অসুস্থতার জেরে নিতে পারলেন না শপথ 

রাজ্যে কোভিড পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়াবহ। মৃত্যুর সংখ্যা রোজই বেড়ে চলেছে। এবার থাবা উলুবেড়িয়ায়।  জানা গিয়েছে, করোনা উপসর্গ নিয়ে সম্প্রতি উলুবেড়িয়া সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে হন ওই রোগী। শনিবার সকালে ওই রোগীর শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। এরপরে হাসপাতালেই প্রাণ হারায় ওই রোগী। চিকিৎসার গাফিলতির অভিযোগ তুলে সরব মৃতের পরিবার। ওই রোগীকে সময় মতো প্রয়োজনীয় অক্সিজেন দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। এরপরেই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠতেই রোগীর পরিবার-আত্মীয়স্বজনেরা উলুবেড়িয়া সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভাঙচুর চালান।

 আরও পড়ুন, কোভিডে ফের ১০০ উপরে মৃত্যু বাংলায়, বেসরকারি হাসপাতালকে টিকা দেওয়া বন্ধ করল রাজ্য সরকার 


পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ঘটনাস্থলে এসে পৌছয় উলুবেড়িয়া থানার ওসি কৌশক কুণ্ডুর নের্তৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী। রোগীর পরিবারকে অনেক বুঝিয়ে শান্ত করা হয়। যদিও চিকিৎসার গাফিলতির ব্যাপারে মুখ খুলতে চাননি উলুবেড়িয়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এদিকে অক্সিজেনের অভাবে সারা দেশেই মৃত্যু ঘটনার খবর প্রকাশ্যে আসছে। ইতিমধ্যেই ভ্যাকসিন ও টিকা চেয়ে মোদীকে চিঠি পাঠিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়।বিধানসভার প্রথম অধিবেশনে শনিবার দৃঢ়তার সঙ্গে এই কথাই জানালেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। পাশপাশি কেন্দ্রের বিরুদ্ধে রাজ্যেকে পর্যাপ্ত ভ্য়াকসিন, অক্সিজেন না দেওয়া নিয়েও অভিযোগ তুলেছেন মমতা। তিনি এদিন বলেছেন, কেন বাংলাকে ভ্যাকসিন-অক্সিজেন দেওয়া হচ্ছে না।  যদিও ইতিমধ্যেই নবান্ন থেকে ঘোষণা করে মমতা জানিয়েছেন, রাজ্যের একাধিক হাসপাতালে অক্সিজেন প্ল্যান্ট গড়ে তোলা হবে।