কলকাতা থেকে ফিরে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন তিনি। করোনা গুজবে শেষপর্যন্ত আত্মহত্যা করলেন এক যুবক। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণার গাইঘাটায়।

আরও পড়ুন: করোনার উপসর্গ নিয়ে গতরাতে ভর্তি, রিপোর্ট আসার আগেই মহিলার মৃত্যু এনআরএসে

মৃতের নাম রাকেশ দাস। বাড়ি, গাইঘাটার কেমিয়া গ্রামে। কলকাতায় আইসক্রিমের ব্যবসা করতেন রাকেশ। লকডাউনের কারণে ব্যবসা তেমন চলছিল না। সপ্তাহ খানেক আগে গাইঘাটার বাড়িতে ফিরে আসেন রাকেশ। বাড়ি ফেরার পর অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি। পরিবারের লোকেদের দাবি, এলাকায় গুজব রটে যায় যে, রাকেশ করোনায় আক্রান্ত! তাঁকে বাড়ির বাইরে বেরোতে দিচ্ছিলেন না পাড়া-প্রতিবেশীরা। এমনকী, ছেলের সঙ্গে মা-কেও দেখা করতে দেওয়া হচ্ছিল না। রাকেশকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন বাড়ির লোকেরা। কিন্তু স্বাস্থ্য পরীক্ষায় করোনা ধরা পড়েনি। মৃতের পরিবারের লোকেরা দাবি, দীর্ঘদিন ধরেই ব্রংকাইটিসের সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। কিন্তু স্থানীয় বাসিন্দারা সেকথা বুঝলে তো!  রবিবার বিকেলে নিজের বাড়িতেই গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেন রাকেশ দাস। 

আরও পড়ুন: লকডাউনের মাঝেও ঋণের টাকা আদায়ের চেষ্টা, ব্যাঙ্ককর্মীদের ঘিরে চলল বিক্ষোভ

আরও পড়ুন: এশিয়ানেট নিউজ বাংলার খবরের জের, গাছ থেকে হোম কোয়রান্টিনে পুরুলিয়ার সাত যুবক

এলাকায় যে করোনা গুজব ছড়িয়েছে, সেকথা স্বীকার করে নিয়েছেন গাইঘাটার কেমিয়া গ্রামের বাসিন্দারা। স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য জানিয়েছেন, গ্রামবাসীদের সচেতন করার চেষ্টা করেছিলেন তিনি। রাকেশের বাড়িতে আশাকর্মীদের পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু শেষরক্ষা হল না। স্রেফ গুজবের কারণেই নিজেকে শেষ করে দিলেন তরতাজা এক যুবক।