বিশ্বের ১৯০টিরও বেশি দেশের মানুষ এখন করোনা সংক্রমণের শিকার। আক্রান্তের সংখ্যা গোটা দুনিয়া জুড়ে ১৩ লক্ষেরও বেশি। প্রাণ হারিয়েছেন ৭০ হাজার মানুষ। এর মধ্যেই চিন্তা বাড়িয়ে দিল নতুন একটি খবর। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের কবল থেকে এবার রেহাই মিলছে না পশুদেরও।

বর্তমান বিশ্বে চিন ও ইতালির পর করোনাভাইরাসের নতুন এপিসেন্টার হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লক্ষেরও বেশি। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ট্রাম্পের দেশে করোনা সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ১২০০ জনের। ফলে দেশটিতে বর্তমানে মৃতের সংখ্যা ৯,৫০০ বেশি। আর এই পরিস্থিতিতে মার্কিন মুলুকে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা নিউইয়র্কের। এখানে এখনও পর্যন্ত করোনা সংক্রমণে প্রাণ হারিয়েছেন ২,২০০ জন। আর এই পরিস্থিতিতেই আশঙ্কা আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিল একটি খবর। জানা গিয়েছে এই শহরের ব্রোমক্স চিড়িয়াখানায় এবার করোনা সংক্রমণের শিকার হল ৪ বছর বয়সী একটি বাঘ। মানুষের শরীর থেকে ভাইরাসটি নাদিয়া নামের ওই বাঘের শরীরে প্রবেশ করেছে বলে মনে করা হচ্ছে। পরীক্ষা করে নাদিয়ার  শরীরে কোভিড-১৯ এর উপস্থিতি পাওয়া গেছে। 

জুনে পরিস্থিতি হবে সবচেয়ে খারাপ, সমীক্ষা বলছে লকডাউন চলতে পারে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত

লকডাউনকে বুড়ো আঙ্গুল পাকিস্তানে, পুলিশের গাড়িতে পাথর ছুঁড়ল উন্মত্ত জনতা, দেখুন ভিডিও

করোনা ভাইরাসের টার্গেট এবার তরুণ প্রজন্ম, পরিসংখ্যান দিয়ে সতর্ক করল 'হু'

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে নাদিয়া, তার বোন আজুল, ও আরোও দুটি বাঘ এবং তিনটি আফ্রিকান সিংহ ‘শুকনো কাশির’ সমস্যায় ভুগছে। শ্বাসযন্ত্রের সমস্যার কারণে চিড়িয়াখানার বেশ কিছু সিংহ ও বাঘকে কোভিড-১৯ টেস্ট করান হয়। সেখানেই নাদিয়ার করোনা ধরা পড়ে। এমনই তথ্যই দিচ্ছে  যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাগ্রিকালচারস ন্যাশনাল ভেটেনারি ল্যাবরেটরিজ।

চিড়িয়াখানার দেওয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ‘ বাঘগুলোর ক্ষুধামন্দার সমস্যা দেখা দিয়েছে। তবে চিড়িয়াখানায় তারা পর্যবেক্ষণের মধ্যেই আছে। চিকিৎসাতেও বেশ সাড়া দিচ্ছে। ঠিক কিভাবে তাদের মধ্যে কনোরাভাইরাস ছড়ালো সেটা এখনো অজানা। কারণ, একেকটা প্রজাতি করোনাভাইরাসের সঙ্গে একেকরকম আচরণ করে। একেক প্রজাতি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে একেকরকম লক্ষণ প্রকাশ করে। তবে যতদিন পুরোপুরি সেরে না ওঠে ততোদিন বাঘগুলোকে আমরা পর্যবেক্ষণে রাখবো।’

এর আগে সিঙ্গাপুরেও বেশ কয়েকটি পোষ্যের শরীরে তাদের মালিকদের থেকে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়েছিল। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গেল ১৬ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে  নিউইয়র্কের ব্রোনক্স চিড়িয়াখানা। মনে করা হচ্ছে যেসব লোক বাঘগুলোর দেখভাল করে তাদের কোনো একজনের মাধ্যমে ছড়িয়েছে এই ভাইরাস। হয়তো ওই ব্যক্তির মধ্যে এখনো করোনাভাইরাসের লক্ষণ প্রকাশ পায়নি। কিন্তু তিনি ভাইরাসটি বহন করছেন। তাই চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ এবার বাঘগুলোর দেখভাল করা সকলকে  করোনা পরীক্ষা করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। চিড়িয়াখানার প্রাণীদের মধ্যে এভাবে মারণ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় যারপরনাই উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্রের বণ্যপ্রাণী সংরক্ষণ সমিতিও।