নির্ধারিত সময় করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ডোজটি নিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বৃহস্পতিবার সকালে দিল্লি অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সে (AIIMS) এ গিয়ে টিকা নিয়েছেন তিনি। এদিন তাঁকে টিকা দিয়েছেন পঞ্জাবের সিস্টার নিশা শর্মা তাঁকে প্রথম ডোজটি দিয়েছিলেন পদুচেরির বাসিন্দা নিবেদাও। এদিন তিনিও উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর টিকাকরণের সময়। গতমাসে করোনাভাইরাসের প্রথম ডোসটি নিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেই সময় পদুচেরির নিবেদদাও-এর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন কেরলের সিস্টার রোসম্মা অনিল।

 এদিন টিকা নেওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি বার্তা দিয়ে জানিয়েছেন তিনি করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ডোজটি নিয়েছে এইমস থেকে। করোনাভাইরাসকে পরাস্ত করার কয়েকটি হাতিয়ারের মধ্যে টিকাগ্রহণও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তিনি নাগরকিদের উদ্দেশ্যে বলেন আপনি যদি টিকার জন্য যোগ্য হন তাহলে খুব তাড়াতাড়ি আপনাকেও টিকা দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় বার টিকা নেওয়ার একটি ছবিও শেয়ার করেন নেটিজেনদের মধ্যে। 

মোদীকে টিকা দেওয়ার পর পঞ্জাবের সিস্টার নিশা শর্মা সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে জানিয়েছে, এটি তাঁর কাছে একটি স্মরণীয় দিন। প্রধামন্ত্রী তাঁর সঙ্গে কথা বলেছিলেন বলেও জানিয়েছেন নিশা। তিনি আরও বলেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করা ও তাঁকে টিকা দেওয়া তাঁর কাছে একটি স্মরনীয় মুহূর্ত হয়ে থাকবে। 

অন্যদিকে এদিন টিকা প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন পদুরের নিবেদাদও। তিনি বলেন আরও একবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে পেরে তিনি আপ্লুত। তাঁকে টিকা দেওয়ার আরও একটা সুযোগ তিনি পেয়েছিলেন। তিনি আরও বলেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তিনি ছবি তুলেছেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিতীয়বা দেখা করার সুযোগ পেয়ে খুবই খুশি হয়েছেন বলেও সংবাদ সংস্থা এএনআইকে জানিয়েছেন। 


নরেন্দ্র মোদীকে ভারত বায়োটেক ইন্টারন্যাশানাল লিমিটেডের কোভ্যাক্সিনের শট দেওয়া হয়েছিল। প্রথম দফায় তিনি যখন টিকা নিয়েছিলেন তখন এই প্রতিশেষধক নিয়ে চরম বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। তখন বলা হয়েছিল টিকাটি তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষ করেনি। তার আগেই জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেওযা হয়েছে। সেই সময় নরেন্দ্র মোদী টিকা নিয়ে নারগিকদের টিকা গ্রহণের বার্তা দিয়েছিলেন। ৭১ বছরের প্রধানমন্ত্রী ৬০ বছরের উর্ধ্বদের টিকা প্রধান শুরুর দিনেই আচমকাই ভোরবেলা দিল্লির এইমস হাসপাতালে দিয়ে করোনাভাইরাসের প্রথম টিকাটি নিয়েছিলেন।