কয়েকদিন আগেই প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে আইপিএলে তিনশো ছক্কা মারার কৃতিত্ব অর্জন করেছিলেন। বয়স যত বাড়ছে, ততই যেন শক্তিও বাড়ছে ক্যারিবিয়ান দৈত্যের। এবার পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই ছক্কা মারার নয়া নজির গড়ে ফেললেন ক্রিস গেইল। বিশ্বকাপে সবথেকে বেশি ছয় মারার রেকর্ডও গড়ে ফেললেন তিনি। 

এ দিন ট্রেন্ট ব্রিজে  বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই পাকিস্তান সহজেই সাত উইকেটে হারিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। পাকিস্তানের ১০৬ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৩৪ বলে ৫০ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন গেইল। আর নিজের অর্ধশতরান করার পথেই বিশ্বকাপে সবথেকে বেশি ছয় মারার কৃতিত্ব ছুঁয়ে ফেলেন তিনি। পাক পেসার হাসান আলিকে পর পর দু'টি ছক্কা মেরে দক্ষিণ আফ্রিকার এ বি ডেভিলিয়ার্সকে টপকে যান গেইল। এখনও পর্যন্ত একদিনের বিশ্বকাপে মোট ৩৯টি ছক্কা হাঁকিয়েছেন ক্যারিবিয়ান ওপেনার। ডেভিলিয়ার্স মেরেছেন ৩৭টি ছক্কা। ২০১৫ বিশ্বকাপেও অবশ্য একটি নজির গড়েছিলেন গেইল। সেবাার প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশ্বকাপে দ্বিশতরান করেছিলেন তিনি।

শুধু আইপিএল নয়, আন্তর্জাতিক টি টোয়েন্টি ক্রিকেটেও সর্বাধিক ছক্কা হাঁকানোর রেকর্ড রয়েছে গেইলের। মোট ৫৮টি টি টোয়েন্টি ম্যাচে ১০৫টি ছক্কা মেরেছেন ক্যারিবিয়ান ওপেনার। 

একদিনের ম্যাচেও ছক্কা মারার নিরিখে এখন দু' নম্বরে রয়েছেন ক্যারিবিয়ান তারকা। একদিনের ম্যাচে এখনও পর্যন্ত মোট ৩১৫টি ছক্কা মেরেছেন গেইল। তাঁর আগে রয়েছেন পাকিস্তানেরই শহিদ আফ্রিদি। তিনি মেরেছেন ৩৫১ ছক্কা। 

২০১৯ সালে একদিনের ক্রিকেটে বিধ্বংসী ফর্মে রয়েছেন গেইল। এ বছর তাঁর ব্যাটিং গড় ৯৫ ছুঁই ছুঁই। ২০০৮ সালে শেষবার একদিনের ক্রিকেটে গেইলের ব্যাটিং গড় ৫০ ছাড়িয়েছিল। তার পরে গত এক দশকে একদিনের ক্রিকেটে গেইলের ব্যাটিং গড় ৪০ পেরোয়নি। এ বছরের আইপিএল থেকেই যেন নিজেকে পুরনো মেজাজে ফিরে পেয়েছেন বাঁ হাতি ক্যারিবিয়ান ওপেনার।