ভারতীয় ক্রিকেট ভক্তদের মন খারাপ। আর কোনওদিক দেখা যাবে না যুবরাজের সেই রাজকীয় ব্যাটিং। দেখা যাবে না ডিপ মিড উইকেট এলাকা দিয়ে বলে বলে সাদা বলটাকে গ্যালারিতে পাঠানোর সেই মন কাড়া দৃশ্য। কিন্তু না সুখবর রয়েছে তাদের জন্য। বিশ্বকাপের পরই ফের ২২ গজে দেখা যেতে পারে যুবরাজকে। অবসরের দিনই তিনি জানিয়েছিলেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বা আইপিএল-এ তাঁকে আর দেখা না গেলেও বিদেশে বেসরকারি টি২০ লিগগুলিতে তিনি খেলতে চান।  

বিশ্বকাপের পরই ক্রিকেট বিশ্বে দুটি বড় টি২০ টুর্নামেন্ট রয়েছে - কানাডায় জিটি২০ লিগ এবং  আয়ারল্য়ান্ড ও নেদারল্যান্ডে আয়োজিত ইউরো টি২০ স্ল্যাম। এর আগেই যুবরাজকে এই দুই বেসরকারি টি২০ লিগে খেলার জন্য আমন্ত্রণ জানানো ছিল। যুবরাজ ই নিয়ে ভারতীয় বোর্ডের সঙ্গে কথাও বলেন। কিন্তু বোর্ড থেকে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয় কোনও ক্রিকেটারের জন্যই তারা তাদের নীতি পরিবর্তন করতে পারবে না।

ভারতীয় বোর্ড তাদের নথিভুক্ত ক্রিকেটারদের আইপিএল ছাড়া বিশ্বের অন্য কোন বেসরকারি টি২০ লিগে খেলার অনুমতি দেয় না। আইপিএল-এক অনন্যতা বজায় রাখার জন্যই এই কড়ি। সম্প্রতি ইরফান পাঠান ক্যারিবিয়ান লিগে খেলার জন্য নাম নথিভুক্ত করেছিলেন। কিন্তু পরে বোর্ডের নির্দেশে নাম তুলে নিতে বাধ্য হন তিনি।

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের একটি সূত্র জানিয়েছে, জিটি২০ লিগ এবং ইউরো টি২০ স্ল্যামে খেলার জন্যই বিশ্বকাপের মাঝে হঠাত অবসর ঘোষণা করলেন তিনি। আন্তর্জাতিক, প্রথম শ্রেনির, ও আইপিএ থেকে অবসর নেওয়ায় তিনি আর বোর্ডের বেতনভুক ক্রিকেটার নন। কাজেই ওই লিগগুলিতে খেলতে আর বাধা নেই যুবির।

গত কয়েক বছর ধরেই অবসরের ভাবনা তাঁর মাথায় চলছিল বলে জানিয়েছিলেন যুবরাজ। ভারতীয় ফেরার আর সুযোগ নেই, বুঝে গিয়েছেন। এই বছর আইপিএল নিলামে প্রথমে অবিক্রিত থাকার পর মুম্বই ইন্ডিয়ান্স তাঁকে ১ কোটি টাকা দিয়ে দলে নিয়েছিল। দল আইপিএল জিতলেও গোটা মরসুমে যুবি মাত্র ৪টি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন, রান করেছেন ৯৮।

বিদেশী ওই টি২০ লিগগুলিতে বিশ্বক্রিকেটের অনেক বড় তারকারই খেলার কথা। সপ্তাহ দুয়েক আগেই দিলীপ বেঙ্গসরকর ও ওয়াসিম আক্রম ইউরো টি২০ স্ল্যাম-এর উদ্বোধন তরে এসেছেন। বেঙ্গসরকর জানিয়েছেন, আয়ারল্যান্ডে ইউরো লিগ ঘিরে দারুণ উৎসাহ রয়েছে। তাঁর মতে এই টুর্নামেন্ট বেশ জনপ্রিয় হবে। যুবরাজও এই কারণেই হঠাৎ অবসর নিলেন বলেই ধারণা তাঁর।