বুধবার বিশ্বকাপ ২০১৯-এর  ১৭তম ম্যাচে টন্টনের কুপার অ্যাসোসিয়েটস কাউন্টি মাঠে মুখোমুখি অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তান। এই মুহূর্তে আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে পাকিস্তান। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শেষ ম্যাচ বৃষ্টিতে ধুয়ে গেলেও তার আগের ম্যাচে একদিনের ক্রিকেটের এক নম্বর দল তথা এইবারের বিশ্বকাপ জেতার প্রধান দাবিদার ইংল্যান্ডকে পরাজিত করেছে তারা। আপাতত ৩টি ম্যাচ থেকে তারা তিন পয়েন্ট পেয়েছে।

অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়াকে আফগানিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে দারুণভাবে টুর্নামেন্টটা শুরু করেছিল। গত একবছরের হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর, নাগারে দশটি ম্যাচ জিতে তারা প্রায় আকাশে উঠে গিয়েছিল। তাদের বাস্তবের কঠিন জমিতে নামিয়ে এনেছে ভারত।

এই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার সামনে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন কোন পাকিস্তান দলের সামনে পড়বে কারা? সম্প্রতি ইউএইএতে পাকিস্তানকে পাঁচ ম্যাচের ওডিআই সিরিজের সবকটি ম্যাচে হারিয়েছে তারা। সেই পাকিস্তান তাদের বিরুদ্ধে নামবে? নাকি ইংল্যান্ডের মতো দলকে উড়িয়ে দেওয়া পাকিস্তান খেলবে টন্টনে?

অস্ট্রেলিয়া দলের খবর

মার্কাস স্টইনিস চোটের কারণে এই ম্যাচে নেই। তাঁর বদলে তড়িঘড়ি উড়িয়ে আনা হচ্ছে মিচেল মার্শকে। তবে ম্যাচের আগের দিন শম মার্শকে অনেকক্ষণ ব্যাট করতে দেখা গিয়েছে। মনে করা হচ্ছে ম্যাক্সওয়েলকে দিয়ে বেশি বল করানো হবে আর শন মার্শকে ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রথম একাদশে খেলানো হবে।

পাকিস্তান দলের খবর

পাকিস্তান দলে চোট-আঘাতের সমস্যা নেই। তারা সম্ভবত প্রথম একাদশ অপরিবর্তিতই রাখতে চলেছে।

পিচ ও আবহাওয়া

মাঠের আকার ছোট। তাই প্রচুর রান ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে। অবশ্য কুপার অ্যাসোসিয়েটস কাউন্টি গ্রাউন্ডে শেষ খেলায় আফগানিস্তানকে ধরাশায়ী করেছিলেন নিউজিল্যান্ডের জোরে বোলার জিমি নিশাম। আকাশে মেঘ থাকলে পিচ থেকে জোরে বোলররা সাহায্য পাবেন। তবে যদি সেই মেঘ খেলা আদৌ হতে দেয়। সপ্তাহ জুড়েই টন্টনে বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। বুধবার হালকা বৃষ্টিপাতের ৫০ শতাংশ সম্ভাবনা রয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার সম্ভাব্য প্রথম একাদশ

ডেভিড ওয়ার্নার, অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), উসমান খোয়াজা, স্টিভ স্মিথ, শন মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, অ্যালেক্স কেরি (উইকেটরক্ষক), প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক, অ্যাডাম জাম্পা, নাথান কুল্টার-নাইল।

পাকিস্তানের সম্ভাব্য প্রথম একাদশ

ইমামুল হক, ফখর জামান, বাবর আজম, মহম্মদ হাফিজ, সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), আসিফ আলি, ইমাদ ওয়াসিম, ওয়াহাব রিয়াজ, শাদাব খান, হাসান আলি, মহম্মদ হাসানাইন।