যেভাবে শুরু করেছিলেন দুই ইংরেজ গোড়াপত্তনকারী ব্য়াটসম্য়ান জেসন রয় (৬৬) ও জনি বেয়ারস্টো (১১১) তাতে হেসেখেলে ৩৫০ রানের স্কোর তুলতে পারত ইংল্যান্ড। কিন্তু, শেষের দিকে ভারতীয় বোলাররা বেশ ভাল প্রত্যাবর্তন করলেন। বিশেষ করে মহম্মদ শামি ৫ উইকেট নিলেন। তবু শেষ ১০ ওভারে ৯২ রান তুলল ইংল্যান্ড। সব মিলিয়ে ৫০ ওভারে ইংল্যান্ড ৩৩৭/৭ রান তুলল। রেকর্ড বলছে বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ সফল রান তাড়ার রেকর্ড ৩২৯ রান। ফলে ভারতকে এদিন জিততে গেলে একটি বিশ্বকাপ রেকর্ড গড়তে হবে।  

এদিন শুরুতে শামি ও বুমরা বেশ কয়েকবার ইংরেজ ব্যাটসম্যানদের বিব্রত করলেও ভাগ্যের জোরে তাঁরা বেশ কয়েকবার বেঁচে যান। আর তারপর ২২ ওভারে ১৬০ রান তুলে দেন রয় ও বেয়ারস্টো।

এরপর জাদেজার একটি দুর্দান্ত ক্যাচে রয় ফেরার পর জো রুট যোগ দেন বেয়ারস্টো-এর সঙ্গে। তাঁরাও একটি ভাল জুটি গড়েন। এরপরই ভারতীয় বোলাররা ভাল প্রত্যাবর্তন করেন। মাঝের ওভারে বেশ স্লো বল করে ইংরেজদের রান তোলার গতিতে লাগাম লাগান তাঁরা। এরমধ্যে শামি এসে প্রথমে বেয়ারস্টো ও পরে মর্গান (১)-কে তুলে নেন শামি।  ডেথ ওভারে তিনি রুট (৪৪), বাটলার (২০) ও ওকস (৭)-এর উইকেট নিয়ে মোট ৫ উইকেট নিলেন। তবে শেষ দিকে রানটাও একটু বেশই দিয়ে দিয়েছেন বাংলার পেসার।

এর মধ্যেই একটি দুর্দান্ত ইনিংস খেললেন বেন স্টোকস। ৩টি ছয় ও ৬টি চারের সাহায্যে মাত্র ৫৪ বল খেলে তিনি ৭৯ রান করে যান। একেবারে শেষ ওভারে তাঁর উইকেট নেন বুমরা। এদিন তিনি ৪৪ রান দিয়ে মাত্র ১টি উইকেট পেলেও দারুণ বল করলেন তিনি। শেষ ওভারে দিলেন মাত্র ৩ রান।