ওয়েস্টইন্ডিজের বিরুদ্ধে ভারত ১২৫ রানে জিতেছে। কিন্তু তারপরেও ডিআরএস নিয়ে ভারতীয় দলের ক্ষোভ যাচ্ছে না। বৃহস্পতিবার ডিআরএস-এর ভুলের বড় খেসারত দিতে হয়েছে রোহিত শর্মাকে। প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছতে না পারলেও তাঁকে আউট দেন তৃতীয় আম্পায়ার মাইকেল গফ। এই নিয়ে মাঠেই দৃশ্যত নিজের অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন রোহিত।

টসে জিতে কোহলি ব্যাট নেওয়ার পর গোড়াপত্তনকারী রোহিত শর্মা দারু একটি রুল শটে ছয় মেরে শুরু করেছিলেন। কিন্তু ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে কেমার রোচের বলে বিদায় নেন তিনি। বলটি ভিতরে দিকে ঢুকে এসে রোহিতের ব্যাট ও প্যাডের মধ্য দিয়ে গিয়ে জমা পড়ে উইকেটরক্ষক শাই হোপের গ্লাভসে। রোচ-হোপ ও অন্যান্য ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটাররা আবেদন করলেও মাঠের আম্পায়ার রিচার্ড ইলিংওয়ার্থ আউট দেননি।

এরপর মামলা তৃতীয় আম্পায়ারের হাতে এলে ডিআরএস-এর বিভিন্ন প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়েও বলটি রোহিতের ব্য়াটে আদৌ লেগেছিল নাকি তা নিশ্চিত করা যায়নি। রিপ্লে দেখে বল ব্যাটে লাগেনি বলে মনে হলেও, আলট্রাএজ-এ দুটি শব্দ পান তৃতীয় আম্পায়ার মাইকেল গফ। সেই আওয়ার ব্যাট মাটিতে ঠোকার ও বল প্যাডে লাগার কারণে তৈরি হয়েছিল বলেই মনে করছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু, বেশি চিন্তাভাবনা না করে, নিশ্চিত না হয়েই গফ আউটের নির্দেশ দেন। এরপর নিজের সিদ্ধান্ত বদল করা ছাড়া উপায় ছিল না ইলিংওয়ার্থের।

দিনের শেষে ভারত ১২৫ রানে ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে বড় জয় পাওয়ার পরও তাঁর এই নিয়ে রোহিত শর্মার ক্ষোভ যায়নি। ম্য়াচের পরের দিন সোশ্যাল মিডিয়ায় একেবারে ছবি দিয়ে তিনি যে আউট হননি তার প্রমাণ দিলেন তিনি। এদিন নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে রোহিত তাঁর ব্য়াট ও প্যাডের মাঝখান দিয়ে বল যাওয়ার সময়ের দুটি ছবি পোস্ট করেছেন। একটি সামনের দিক থেকে একটি পিছন দিক থেকে।

দুই অ্যাঙ্গেল থেকেই দেখা যাচ্ছে বল তার প্যাড ঘেসে থাকলেও ব্যাট ও বলের মাঝে অন্তত এক ইঞ্চি ফাঁক রয়েছে। এই পোস্টের সঙ্গে রোহিত মাথায় হাত দেওয়া একটি ইমোজি দেন।

 

শেষ পর্যন্ত ওই  ঘটনায় ভারতের মাথায় হাত না পড়লেও, এই নিয়ে কিন্তু বেশ কয়েকবার ডিআরএস-এর অধারাবাহিকতার শিকার হতে হল ভারতীয় দলকে। বৃহস্পতিবার রোহিতকে আউট দেওয়ার পর মাঠের দর্শক ও রোহিতের স্ত্রী রীতিকা শর্মাও হতাশা প্রকাশ করেন।