কথায় বলে কারোর সর্বনাশ তো কারোর পৌষমাস। শিখর ধাওয়ান ও ঋষভ পন্থের ক্ষেত্রেও তাই-ই হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে শতরান করা ম্যাচেই শিখর ধাওয়ানের বাঁহাতের বুড়ো আঙুলের হাড়ে চিড় ধরেছিল। কিন্তু বুধবার সব জল্পনার অবসান হয়ে গিয়েছে। দলের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে গব্বর আর বিশ্বকাপে খেলতে পারবেন না।

অন্যদিকে বিশ্বকাপের দলে ঋষভ পন্থকে রাখার জন্য রিকি পন্টিং, সৌরভ গঙ্গোপাধ্য়ায়ের মতো ক্রিকেটাররা সওয়াল করেছিলেন। কিন্তু ভারতের জাতীয় নির্বাচকরা তাঁর বদলে দীনেশ কার্তিককে দলে নিয়েছিলেন, জানিয়েছিলেন
অভিজ্ঞতা ও ফিনিশের ক্ষমতার জন্যই কার্তিককে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। হতাশ ঋষভ অবশ্য নিজেকে তৈরি রেখেছিলেন।

শিখরের চোট লাগার পরই তাঁর ঠেকনা হিসেবে ইংল্যান্ড উড়িয়ে আনা হয়েছিল তাঁকে। শিখরের বিকল্প হিসেবে বুধবার তাঁর নামই ঘোষণা করা হয়।

এই দুই ক্রিকেটারের জন্যই এদিন টুইটে বার্তা দিয়েছেন মাস্টার ব্লাস্টার সচিন তেন্ডুলকর। এর আগে চোটের জন্য না হলেও পিতার মৃ্ত্যুর জন্য ১৯৯৯ সালে  বিশ্বকাপের মতো বড় টুর্নামেন্ট থেকে সাময়িক অব্যাহতি নিতে হয়েছিল তাঁকে।

এদিন তিনি জানিয়েচেন শিখরের মনের অবস্থা তিনি বুঝতে পারছেন। জানিয়েছেন শিখর হবাল খেলছিলেন। এই অবস্থায় বিশ্বকাপের মতো টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নেওয়াটা হৃদয় ভেঙে যাওয়ার মতো। তবে সচিনের প্রত্যাশা, শিখর আরও শক্তিশালী ক্রিকেটার হিসেবে ফিরে আসবেন।

অন্যদিকে ঋষভ পন্থ আচমকাই এই বড় মঞ্চটা পেয়েছেন। সচিন জানিয়েছেন এটা তরুণ ক্রিকেটারটির জন্য দারুণ সুযোগ। টুর্নামেন্টের জন্য তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সচিন।