প্রায় বুধবারের ওল্ড ট্রাফোর্ডে ভারত-নিউজিল্যান্ড সেমিফাইনাল ম্য়াচের পুনরাবৃত্তি ঘটছে বৃহস্পতিবারের এজবাস্টনে। কিউই বোলারদের মতোই এদিন শুরু স্পেলে আগুন ঝড়ালেন ইংরেজ জোরে বোলাররা। ভারতের পড়েছিল ৫ রানে ৩ উইকেট, অস্ট্রেলিয়ার পড়ল ১৪ রানে ৩।

দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে কোনও রান না করেই এলবিডব্লু হয়ে ফিরে গেলেন অজি অধিনায়ক। গ্রুপ স্তরের ম্য়াচেও আর্চারের বলেই আউট হয়েছিলেন তিনি।

রোহিত শর্মার মতোই গ্রুপেই দম ফুরিয়েছে আরেক রান মেশিন ডেভিড ওয়ার্নারের। এদিনও দুটি চার মেরে ভাল শুরু করেছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ক্রিস ওকস-এর বলে ১১ বলে মাত্র ৯ রান করে সময়ের ভুলচুকে বেয়ারস্টোর হাতে ক্য়াচ দিয়ে ফেরেন ওয়ার্নার।

আর এই দিনই বিশ্বকাপ অভিষেক হওয়া পিটার হ্য়ান্ডসকম্ব ১২টি বল খেলার পরও ক্রিস ওকসের দুর্দান্ত ডেলিভারিতে বোল্ড হলেন। রান করেছেন মাত্র ৪।

শুরুর স্পেলে ক্রিস ওকস ৬ ওভারে ১৬ রান দিয়ে ২ উইকেট নিলেন। আর আর্চার ৫ ওভারে ১১ রান দিয়ে নিলেন ১টি উইকেট।

এরপর অবশ্য অভিজ্ঞ স্টিভ স্মিথ (৬০ ব্যাটিং) ও উইকেটরক্ষক অ্যালেক্স কেরি (৪৬) নিজেদের মধ্যে ১০৩ রানের জুটি গড়লেন। কিন্তু এবার ২৮ তম ওভারে পর পর আঘাত হানলেন আদিল রশিদ। মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন অ্যালেক্স কেরি। আর ২ বল পরেই শূন্য রানে এলবিডব্লু হলেন স্টইনিস।

ফলে অস্ট্রেলিয়া আপাতত ২৮ ওভারে ১১৮ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছে। বুধবার ভারতের ৫ উইকেট পড়েছিল ৩০ ওভারের মাথায়, ৯২ রানে। আপাতত অস্ট্রেলিয়ার ভরসা সেই স্মিথ। তাঁর সঙ্গে ক্রিজে আছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। ভারতের মতো অবস্থা হয় কিনা অজি ব্যাটিং লাইনআপের সেটাই দেখার।