দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ ২০১৯-এর প্রথম ম্যাচেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে প্রথম উইকেট পেতেই ঢুকে পড়েছিলেন একদিনের ক্রিকেটের এলিট অলরাউন্ডারদের তালিকায়। আব্দুর রজ্জাক, সনৎ জয়সূর্য, জ্যাক কালিস, শাহিদ আফ্রিদির পর চতুর্থ ক্রিকেটার হিসেবে ৫০০০ রান ও ২৫০ উইকেট দখল করেন। আর সোমবারের ম্যাচে তিনি পূর্ণ করলেন একদিনের ক্রিকেটের ৬০০০ রান।

মূলত তাঁর দুরন্ত অপরাজিত ১২৪ রানের ইনিংসে ভর দিয়েই ওয়েস্টইন্ডিজের বিরুদ্ধে অনায়াসে ৩২২ রান তুলে জয় পেল বাংলাদেশ। শুধু তাই নয়, শতরান করার আগে বল হাতেও ৫৪ রান দিয়ে দুটি উইকেট নিয়ে সাকিব বুঝিয়ে দিয়েছেন, কেন তিনি বর্তমানে বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার। এক ম্য়াচেই ভেঙে দিলেন বেশ কয়েকটি রেকর্ড।

আরও পড়ান- কি ব্যাটিং দেখাইলেন সাকিব ও লিটন কত্তা! বিলেতে বাংলার ব্যাঘ্র-গর্জন

এদিনের ম্যাচের আগে একদিনের ক্রিকেটে ৬০০০ রান করতে সাকিবের মাত্র ২৩টি রান দরকার ছিল। আর তিনি শেষ পর্যন্ত তাঁর কেরিয়ারের নবম শতরানটি করে যান।

একদিনের ক্রিকেটে ৬০০০ রান ও ২৫০ উইকেটের কীর্তি সাকিব ছাড়া আছে শুধু সনৎ জয়সূর্য, জ্যাক কালিস ও শাহিদ আফ্রিদির। আফ্রিদি এই কীর্তি গড়েছিলেন ২৯৪ ম্যাচে। এতদিন তিনিই ছিলেন এই ব্যাপারে দ্রুততম। সাকিব ৯২ ম্যাচ আগেই এই মাইলফলকে পৌঁছে সেই রেকর্ড কেড়ে নিলেন।

আরও পড়াুন- ব্যর্থ গেইল-রাসেল, তারপরেও ১১টি ছয়! টন্টনে হারিয়েই গেল দুটি বল

২০১৫ সালের বিশ্বকাপে মাহমুদুল্লা পর পর দুটি ম্যাচে শতরান করেছিলেন। এতদিন তিনিই একমাত্র বাংলাদেশী ব্যাটসম্যান হিসেবে পর পর দুটি ম্যাচে শতরান করেছিলেন। ইংল্যান্ড ম্যাচের পর এদিন ওয়েস্টইন্ডিজ ম্য়াচেও শতরান করে সেই কীর্তি স্পর্শ করলেন ৩২ বছরের বাংলাদেশী অলরাউন্ডার।

এদিন সাকিব শতরান সম্পূর্ণ করেন মাত্র ৮৩ বলে। এই বিশ্বকাপে এটাই দ্বিতীয় দ্রুততম শতরান। এক নম্বরে আছেন ইংরেজ ব্যাটসম্যান জস বাটলার। তিনি শতরান করেছেন ৭৫ বলে।