পর পর দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়াকে পরাজিত করে দারুণভাবে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করেছে ভরাতীয় দল। কিন্তু সব কিছু ছাপিয়ে বড় হয়ে উঠেছে শিখর ধাওযানের চোট। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচে শতরান করার পথেই তাঁর বুড়ো আঙুলে লাগে বলের আঘাত। হাড়ে চিড় ধরেছে। কিন্তু মনোবল কিন্তু এতটুকু চিড় খায়নি। এদিন তাঁর পোস্ট করা একটি টুইট-ই সেই কথা বলছে।

গব্বর এদিন উর্দু কবি রাহাত ইন্দোরির একটি শায়েরির পঙক্তি তুলে দিয়েছেন নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে। এই চারটি পঙক্তিতেই স্পষ্ট তাঁর 'হসলঁ' বা মনোবল অটুট রয়েছে। আর সেই মনোবলের জোরেই তিনি এই বিশ্বকাপেই ফের ফিরতে চান।

তবে শিখরের পক্ষে আর আদৌ খেলা সম্ভব হবে কি না তাই নিযে ভারতীয় ক্রিকেট মহলেই প্রশ্ন রয়েছে। তাঁর আঙুলের হাড়ের যা অবস্থা তাতে আগামী তিন সপ্তাহ তাঁকে মাঠের বাইরে থাকতেই হবে। অর্থাত রাউন্ড রবিন লিগের নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান, আফগানিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ইংল্যান্ড, এবং  বাংলাদেশ ম্যাচে তাঁকে পাওয়া যাবে না এটা নিশ্চিত। একেবারে শেষ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে তিনি ফিট হতে পারেন। অনেকেই বলছেন, বিশ্বকাপের একেবারে শেষ ভাগে কি আর তাঁকে দরকার হবে টিম ইন্ডিয়ার, হয়তো ততদিনে অন্য কোনও ব্যাটসম্যান তাঁর জায়গাটি নিয়ে নেবেন।

ইতিমধ্যেই তাঁর বিকল্প হিসেবে না হলেও ঠেকনা হিসেবে ইংল্যান্ড উড়ে গিয়েছেন তরুণ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্য়ান ঋষভ পন্থ। তবে শিখরকে এখনই দেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে না। তিনি দলের সঙ্গে ইংল্যান্ডেই থাকছেন। তাঁর চোটের দেখভাল করছেন দলের ফিজিও প্যাট্রিক ফারহার্ট।

ভারতের সামনে এখন বড় প্রশ্ন তারা ধাওয়ানকে নিয়ে ধৈর্য ধরা হবে নাকি, তাঁর বিকল্প হিসেবে পন্থের নাম ঘোষণা করে দেওয়া হবে? একবারল ধাওয়ানের বদলে পন্থের নাম বিকল্প ক্রিকেটার হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়ে গেলে, কিন্তু ধাওয়ান সুস্থ হয়েও আর দলে ফিরতে পারব না। আর কোনও ক্রিকেটার চোট পেলে তবেই তাঁর বদলে দলে ফেরার সুযোগ পাবেন। তবে আশার কথা বুধবার কিন্তু শিখর বাকি দলের সঙ্গেই হাল্কা অনুশীলন করেন।