বুম-বুম বুমরা! এই একটা নামেই এখন রীতিমতো কাঁপছে অস্ট্রেলিয়া। বলতে গেলে এই প্রথম কোনও ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারতের ব্যাটিং লাইন-আপ নয় আলোচনায় বোলিং লাইন-আপ। আর এই বোলিং লাইন-আপ-এর নেতা হিসাবে সমানে উঠে আসছে জসপ্রীত বুমরা-র নাম। এই মুহূর্তে বিশ্বের এক নম্বর একদিনের বোলার তিনি। ভারতীয় বোলিং লাইন-আপ-এ তাঁর থাকাটা যে কোনও প্রতীপক্ষের ব্যাটসম্যানদের রাতের ঘুমের কেড়ে নিয়েছে। বিশেষ করে বুমরা যে ভাবে অব্যর্থ লক্ষে ইয়র্কার ও বাউন্সার দিয়ে যেতে পারেন তাতে ভীত ব্যাটসম্যানরা। 

সন্দেই নেই বুমরা আতঙ্কে থাকা অস্ট্রেলিয়া কিছুটা হলেও  বিরাট বাহিনীকে মাানসিকভাবে এগিয়ে দিয়েছে। ভারতীয় ব্যাটিংও গত ম্যাচে যথেষ্ট ক্লিক করেছে। রোহিত শর্মা এক অসামান্য শতরানের ইনিংস খেলেছেন। ভারতীয় ব্যাটিং লাইন-আপের গভীরতাও অস্ট্রেলিয়া-কে চিন্তায় রাখছে। ক্রিকেট বিশ্বকাপে এটা ভারতের দ্বিতীয় ম্যাচ। প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে যথেষ্ট আধিপত্য বজায় রেখেই জিতেছে ভারত। 

প্রতিপক্ষ হিসাবে অস্ট্রেলিয়াও হেলাফেলা করার মতো নয়। তাঁদের দুই নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান অস্ট্রেলিয়া দলে ফিরে এসেছেন। এদের একজন হলেন ডেভি়ড ওয়ার্নার ও স্টিভ স্মিথ। এক বছরের নির্বাসনে থাকলেও ওয়ার্নার ও স্মিথের ক্রিকেটীয় দক্ষতায় কোনও মরচে পড়েনি। উল্টে এই দুই ক্রিকেটারের খেলার ক্ষিদে আরও বেড়ে গিয়েছে। ওয়ার্নার, স্মিথরা শুধু যেন মাঠে নামেন রান করতে। ফলে প্রতিপক্ষের বোলারের বলে যখন ওয়ার্নার ও স্মিথ মার দিতে শুরু করেন তথন তাঁদের থামানো সত্যি দুসাধ্য। 

অস্ট্রেলিয়া দলে নাইটেল কুইন্ট্যালও ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচে তাঁর অসাধারণ ব্যাটিং প্রতিভার বিচ্ছুরণ ঘটিয়েছেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে ম্যাচে শুরুতেই ৭৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বসেছিল। সেখান থেকে নাইটেল কুইন্ট্যাল ৯২ রানের বিস্ময় ইনিংস খেলে ২৮৮ রানে পৌঁছে দেন অস্ট্রেলিয়াকে। তাঁর এই ইনিংসের ধাক্কাটা ওয়েস্ট ইন্ডিজ সামলাতেই পারেনি এবং ম্যাচ হেরে যায়। 

ক্রিকেট বিশেষজ্ঞদের অবশ্য দাবি, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলিং অ্যাটাক থেকে ভারতের বোলিং আক্রমণ অনেকবেশি শক্তিশালী। সুতরাং, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচের মতো ঘটনা রোজ রোজ ঘটাতে পারবে না অস্ট্রেলিয়া। পরিসংখ্যানের দিক থেকে দেখতে গেলে অস্ট্রেলিয়া যে একদিনের ক্রিকেটে খুব একটা ভালো জায়গায় আছে  তা কিন্তু নয়। ২০১৭ সালের শুরু থেকে বিশ্বকাপের আগে পর্যন্ত ৩৩টি একদিনের ম্যাচ খেলেছে অজিরা। এরমধ্যে মাত্র ৮টি ম্যাচ জিতেছে। তিন মাস আগে রাঁচিতে অস্ট্রেলিয়া একদিনের ম্যাচে ভারতের বিরুদ্ধে জয় পায়। সেই ম্যাচে অজি অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ ৯২ রান করেছিলেন। অস্ট্রেলিয়া  ৩৩ রানে জয়ী হয়েছিল। সেই থেকে ফিঞ্চ এখন পর্যন্ত ৭১.৪৪ গড়ে রান করেছেন। বিশ্বকাপের ২টো ম্যাচেও জয় পেয়েছে তারা। 

তবে, ভারতীয় বোলিং-এর বিরুদ্ধে ফিঞ্চের ভিতরে ঢুকে আসা বলে দুর্বলতা সর্বজন বিদিত। এদিনের ম্যাচে এই দুর্বলতা তাঁকে ভোগাতে পারে। অজি বোলিং লাইন-আপের মিচেল স্টার্ক-এর গতি ও ক্ষিপ্রতা ভারতীয় ব্যাটসম্যাানদের কাছে ভয়ের কারণ হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। সন্দেহ নেই লড়াই আর পাল্টা লড়াই-এ এদিন এক উপভোগ্য ম্যাচের সাক্ষী হতে চলেছে দ্য ওভাল।