এতদিন পর পর দুই ম্যাচে দুই ধরণের পাকিস্তান দল দেখা গিয়েছে। বিশ্বকাপেই যেমন প্রথম ম্যাচে ১০৫ রানে গুলিয়ে যাওয়ার পর, পরের ম্যাচেই ৩৪৮ রান তুলেছিল পাকিস্তান। এবার আর দুই ম্যাচ নয়, এক ইনিংসের মধ্যেই দেখা গেল পাক দলের দুই রূপ। ৩৪ ওভার পর্যন্ত দাঁতই ফোটাতে পারছিলেন না পাক বোলাররা। অজিরা তুলেছিল ২২৩/২। এখান থেকে ৫০ ওভারের কোটা পূর্ণ না করেই বাকি ৮ উইকেট পাক বোলাররা তুলে নিলেন ৮৪ রানে। ফলে ৪৯ ওভারে ৩০৭ রানেই গুটিয়ে গেল অজি ইনিংস।

এদিন, টসে জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন পাক অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। কিন্তু, শুরুতে টন্টনের কনকনে ঠান্ডা ও মেঘলা আবহাওয়ার সুযোগ নিতে ব্যর্থ হন পাক বোলাররা। ফিঞ্চ -ওয়ার্নারের ওপেনিং জুটি  ২২ ওভারে ১৪৬ রান তুলে দিয়েছিলেন আমিরের বলে ৮২ রানে ফিঞ্চ ফিরে গেলেও একদিনের ক্রিকেটে প্রত্যাবর্তনের পর প্রথম শতরানটি এদিন করে যান ডেভিড ওয়ার্নার। ১১টি চার ও ১টি ছয়ের সাহায্যে তিনি ১০৭ রান করেন।

ফিঞ্চের বিদায়ের পর গিয়ার পাল্টে রান তোলার গতি বাড়াতে গিয়েছিলেন ম্যাক্সওয়েল।  কিন্তু শাহিন আফ্রিদির বলে তিনি ২০ করে আউট হতেই অস্ট্রেলিয়া ইনিংসে ধস নামে। স্মিথ (১০), শন মার্শ (২৩), খোয়াজা (১৮), কেরি (২০) - কেউই দাঁড়াতে পারেননি।

দুর্দান্ত ডেথ বোলিং-এর নমুনা রাখলেন পাক বোলাররা। মহম্মদ আমির ৩০ রান দিয়ে ৫টি উইকেট নিলেন।