২০১৮ সালে পৃথ্বী শ-এর নেতৃত্বে অনুর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ জিতেছিল ভারত। ভারতের তরুণ ক্রিকেটারদের নিয়ে গর্বিত হয়েছিল সারা দেশ। কিন্তু, বয়স ভাঁড়ানোর বিতর্ক সেই গর্বে কালি ছিটিয়ে দিল। অনুর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ জয়ী দলের অন্যতম সদস্য মনজোৎ কালরার বয়স ভাঁড়িয়ে খেলার অভিযোগ উঠল। তাঁর বাবা-মা-এর বিরুদ্ধে চার্জশিট পেশ করল দিল্লি পুলিশ।

চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে পেশ করা ওই চার্জশিট অনুযায়ী বিসিসিআই-এর কাছে নাম নথিভুক্ত করার সময়ে কালরা তাঁর জন্ম ১৯৯৯ সালের ১৫ জানুয়ারি বলে জানিয়েছিলেন কালরা। কিন্তু, তাঁর আসল জন্মদিন ১৯৯৮ সালের ১৫ জানুয়ারি - এমনটাই দাবি দিল্লি পুলিশের। ঘটনার সময় কালরা অপ্রাপ্তবয়স্ক ছিলেন। তাই চার্জশিটে তাঁর বদলে তাঁর বাবা-মা-এর নামই রয়েছে। শুধু কালরা একাই নন, আরও ১১জন খেলোয়াড়ের বিরুদ্ধে একই অপরাধে চার্জশিট পেশ করা হয়েছে।

তবে কালরার বাবা পরভিন কুমার এই অভিযোগ অস্বীকা করেছেন। তাঁর দাবি ১৯৯৯ সালেই কালরার জন্ম। স্কুলে ভর্তির সময়, তাঁর এক আত্মীয় ভুল করে মনজোৎ কালরার জন্মতারিখ ১৯৯৮ লিখে দিয়েছিলেন। তাতেই বিষয়টি নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি তৈরি হয়েছে।

দিল্লির খেলোয়াড় মনজোৎ কালরা। অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে দারুণ খেলেছিলেন তিনি। ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ম্যাচ জেতানো শতরান এসেছিল তাঁর ব্যাট থেকে। ম্যাচের সেরা হয়েছিলেন তিনিই।

কয়েক বছরে ভারতের জুনিয়র ক্রিকেটের প্রভুত উন্নতি হয়েছে। পৃথ্বী শ, ঋষভ পন্থদের মতো কেউ কেউ এখনই ভারতীয় দলের দরজায় কড়া নাড়ছেন। বাকিরা নিজ নিজ রাজ্য দলের হয়ে ভাল পারফর্ম করছেন। কিন্তু দেখা গেল এখনও নিজেদের ছেলে-মেয়েদের বিভিন্ন বয়স ভিত্তিক দলে জায়গা করে দিতে, অভিভাবকদের পক্ষ থেকে বয়স ভাঁড়ানোর পুরনো রোগ বজায় রয়েছে।