সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের সভাপতি হওয়ার পর রবিবার বোর্ডের প্রথম বার্ষিক সাধারণ সভা। বিসিসিআইয়ের ইতিহাসে এটি ৮৮তম বার্ষিক সাধারণ সভা। একাধিক গুরুত্ব পূর্ণ বিষয়ে রবিবারের সভায় আলোচনা হবে। তবে একটি বিষয় নিয়েই সবার মধ্যে আগ্রহ তুঙ্গে। সেটি বোর্ডের কুলিং অফ ব্রেকের নিয়ম। লোধা কমিশনের সুপারিশ কার্যকর করার পর বেশ কিছু বদল হয়েছে বোর্ডের নিয়মে। আর সেই নিয়মের মধ্যে একটি কুলিং অফ ব্রেক। নিয়ম অনুযায়ী একজন পদাধিকারি বোর্ড বা বোর্ডের অনুমদিক কোনও সংস্থায় টানা ছয় বছরের বেশি পদে থাকতে পারবেন না। তিন বছরের বিরতী নিয়ে তাঁকে আবার ফিরে আসতে হবে। রবিবারের বৈঠকে এই নিয়মেই বদল আনার প্রস্তাব পেশ হতে চলেছে। 

আরও পড়ুন - ধোনিকে নিয়ে সম্পুর্ণ স্বচ্ছতা আছে, বলছেন বোর্ড সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

প্রায় তিন বছর প্রশাসকের অধীনে থাকার পর অক্টোবর মাসে বোর্ডের দায়িত্ব তুলে নেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। কিন্তু বোর্ডের নতুন সংবিধান অনুয়ায়ী সৌরভের সভাপতি পদে আয়ু মাত্র ৯ মাস। কারণ সিএবি’র সভাপতি হিসেবে সৌরভ প্রায় পাঁচ বছর দায়িত্বে ছিলেন। কিন্তু মহারাজের মত যোগ্য ব্যক্তির হাতে বোর্ডের দায়িত্ব যাওয়ার পর সবাই মনে করছেন আরও অনেক বেশি সময় প্রয়োজন দেশের প্রাক্তন অধিনায়কের। প্রায় গোটা দেশের সেই দাবি মাথায় রেখে সংবিধান বদলের প্রস্তাব আসতে চলেছে রবিবারের এজিএমে। সৌরভকে যাতে টানা ছয় বছর বোর্ড সভাপতির পদে পাওয়া যায় তেমনটাই চাইছেন সবাই। 

আরও পড়ুন - দ্বিতীয় দিনেই ইনিংসে হারের ভ্রুকুটি, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ব্যাকফুটে পাকিস্তান

ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের সংবিধান অনুযায়ী চার ভাগের তিন ভাগ সদস্যের সমর্থম পেলে সংবিধান পরিবর্তন করা সম্ভব। রবিরারের সভায় সেই সমর্থন আদায় করে সুপ্রিম কোর্টের কাছে নিয়ম বদলের আর্জি জানাবে বিসিসিআই। আরও একাধিক বিষয়ে রবিবারের বৈঠকে আলোচনা হবে। তবে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ এই কুলিং অফ ব্রেক। একই সঙ্গে আছে আরও একটি বিষয়। কনফ্লিক্ট অব ইন্টারেস্ট। সব মিলিয়ে সভাপতি সৌরভের কাছে রবিবারের বৈঠক খুবই গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। 

আরও পড়ুন - আইজলের বিরুদ্ধে গোল শূন্য ড্র, আইলিগের প্রথম ম্যাচেই হোঁচট খেল মোহনবাগান