যে ভয়ের কারণে দেশ ছেড়ে বিদেশের মাটিতে আইপিএল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বিসিসিআই, সে করোনা ভাইরাস একের পর এক থাবা বসিয়ে চলেছে আইপিএলে। টুর্নামেন্ট শুরুর দিন কয়েক আগে আরও একবার মারণ ভাইরাস থাবা বসাল ভারতের কোটিপতি লিগে। তবে এবার সিএসকে নয়, এবার করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে দিল্লি ক্যাপিটালস শিবিরে। দলের সহকারী ফিজিয়োথেরাপিস্টের শরীরে ধরা পড়েছে মারণ ভাইরাস। এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই কিছুটা হলেও উদ্বেগ বড়েছে দিল্লি ফ্র্যাঞ্চাইজি থেকে শুরু করে বিসিসিআই কর্তাদের।

আরও পড়ুনঃপ্রকাশিত হল আইপিএল ২০২০-র সূচি, প্রথম ম্যাচে ধোনি বনাম রোহিত

দিল্লি ক্যাপিটালস দলের তরফ থেকে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে ফিজিয়োথেরাপিস্টের করোনা আক্রান্ত হওয়ার কথা। যদিও স্বস্তির খবর তিনি আরব পৌছানোর পর তৃতীয় টেস্টে তার শরীরে করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। ফলে দলের সংস্পর্শে তিনি এখনও যাননি। বিবৃতিতে জানানো হয়েছে,'দিল্লি ক্যাপিটালসের সহকারী ফিজিওথেরাপিস্ট করোনা পজিটিভ চিহ্নিত হয়েছেন। উনি আগে থেকেই বাধ্যতামূলক কোয়ারান্টাইনে ছিলেন। দুবাইয়ে পৌঁছনোর পর প্রথম দু'টি টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও তৃতীয় টেস্টের রেজাল্ট পজিটিভ আসে। উনি এখনও ফ্র্যাঞ্চাইজির কোনও প্লেয়ার বা সাপোর্ট স্টাফের সঙ্গে দেখা করেননি বা কারও সান্নিধ্যে আসেননি।'

আরও পড়ুনঃমুম্বইয়ের বিরুদ্ধে ম্যাচ দিয়ে শুরু আইপিএল ২০২০-র অভিযান, জেনে নিন কেকেআরের ক্রীড়াসূচি

আরও পড়ুনঃএমন কিছু তারকা ক্রিকেটার একটি বাউন্ডারিও মারতে পারেননি আইপিএলে, দেখে নিন তাদের তালিকা

এর আগে প্রথম করোনা ভাইরাস থাবা বসিয়েছিল চেন্নাই সুপার কিংস শিবিরে। ২ প্লেয়ার সহ মোট ১৩ জনের করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন।  সিএসকের আক্রান্ত সদস্যরা এখও কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। এরপর বিসিসিআইয়ের এক আধিরকারিকের শরীরেও মারণ ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে। এবার দিল্লি ক্যাপিটালস। প্রতিযোগিতায় একের পর এক বিশ্ব মহামারী ভাইরাসের থাবায় গোটা আইপিএল সুষ্ঠুভাবে করা রীতিমত চ্যালেঞ্জের হয়ে উঠছে বিসিসিআইের কাছে।