ইরফান পাঠানের অনবদ্য ব্যাটিং জয় এনে দিল ভারতীয় কিংবদন্তি দলকে। ব্যাট হাতে ধ্বংসাত্মক একটি ইনিংস খেলেন তিনি। মাত্র ৩১ বলে ৫৭ রান করেন তিনি। টপ অর্ডারের বেশিরভাগ ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার দিনে তার চওড়া ব্যাটে ভর করেই শ্রীলঙ্কা কিংবদন্তি দলের বিরুদ্ধে জয় ছিনিয়ে নেয় ভারতীয় কিংবদন্তি দল। সাথে সাথে মঙ্গলবার ডি ওয়াই পাতিল স্টেডিয়ামে রোড সেফটি সিরিজে নিজেদের দ্বিতীয় জয়টি তুলে নিল ভারতীয় কিংবদন্তি দল। 

প্রথমে ব্যাট করে ৮ উইকেট খুইয়ে ১৩৮ রান তোলে শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তিরা। জবাবে ভারতীয় কিংবদন্তিদের শুরুটা হয় দুঃস্বপ্নের মতো। কোনও রান না করেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন সচিন টেন্ডুলকার। আগের ম্যাচে অসাধারণ ব্যাটিং করেছিলেন বীরেন্দ্র সেওবাগ। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে তিনিও ব্যর্থ। মাত্র ৩ রান করে আউট হন তিনি। আর এক তারকা ব্যাটসম্যান যুবরাজ সিংও মাত্র ১ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। এই অবস্থায় ভারতীয় কিংবদন্তি দলের ব্যাটিংয়ের হাল ধরেন মহম্মদ কাইফ এবং সঞ্জয় বাঙ্গার। দুজনে মিলে করেন ৪৩ রান। এরপর রঙ্গনা হেরাথের বলে আউট হয়ে ফেরেন বাঙ্গার। ১৮ রানে ফেরেন তিনি। কাইফও আউট হয়ে যান রানের গতি বাড়াতে গিয়ে। এই অবস্থায় যখন সকলেই ধরে নিয়েছে জয় হতে চলেছে শ্রীলঙ্কা কিংবদন্তিদের, ঠিক তখনই শেষ ওভারগুলিতে ইরফান পাঠানের ঝোড়ো ইনিংস ভারতকে জয় এনে দেয়। 

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শ্রীলঙ্কার শুরুটাও ভালো হয়নি। প্রথম দশ ওভারে তাদের রান ছিল ৩ উইকেটের বিনিময়ে ৫৭। দিলশান এবং কাপুগেদরা ছাড়া আর কোনও ব্যাটসম্যান সেভাবে দাঁড়াতে পারেননি। তারা দুজনেই ২৩ রান করে করেন। কিন্তু নিয়মিতভাবে উইকেটও হারাতে থাকে তারা। শেষ ওভারে রঙ্গনা হেরাথের তিনটি বাউন্ডারি তাদের ১৩৮ রানে পৌঁছে দেয়। ভারতীয় কিংবদন্তিদের হয়ে দুর্দান্ত বোলিং মুনাফ প্যাটেলের। ৪ উইকেট তোলেন তিনি। শ্রীলঙ্কা কিংবদন্তিদের হয়ে মাত্র ৫ রান দিয়ে ২ উইকেট তুলেছেন চামিন্ড ব্যাস। কিন্তু অসাধারণ ব্যাটিং ও বল হাতে একটি উইকেট তোলায় ম্যাচের সেরা হয়েছেন ইরফানই।