টেস্ট ক্রিকেটে নিজেদের সিংহাসন খোয়াল ভারত। ২০১৬ সালের পর প্রথমবারের জন্য টেস্ট ক্রিকেটের শীর্ষস্থান হারাতে হলো বিরাট কোহলিদের। বিরাট কোহলি ২০১৪ সালে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই টেস্ট ক্রিকেটে অসাধারণ ফর্মে ছিল ভারত। দক্ষিণ আফ্রিকায় হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর টেস্ট সিরিজ অল্পের জন্য খুইয়েছিল ভারত। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জিতেছিল কোহলিরা। দেশের মাটিতে সব টেস্ট সিরিজেই দাপট দেখিয়েছিল তারা। শুধু হালে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টেস্ট সিরিজে বিশ্রীভাবে হেরেছিল তারা।  

আরও পড়ুনঃলকডাউনে খান ডাল-ভাত-চোখা,মোবাইল সিনেমার মাধ্যমে বার্তা বাংলার ক্রিকেটারদের

আইসিসি প্রকাশিত নতুন তালিকা ২০১৭ সালের মে মাস থেকে খেলা টেস্টের হিসাবে গঠিত হয়েছে। ২০১৯ সালের মে মাসের পর থেকে খেলা টেস্টের হিসেবে ১০০ শতাংশ পয়েন্ট ও তার আগে অর্থাৎ ২০১৭ থেকে ২০১৯ সালের মে মাস পর্যন্ত খেলা টেস্টের হিসেবে ৫০ শতাংশ পয়েন্ট যোগ করে এই নতুন তালিকা তৈরি করেছে। তার জেরেই এমন রদবদল বলে মনে করেছেন বিশেষজ্ঞরা। 

আরও পড়ুনঃঅধিনায়ক ও ব্যাটসম্যান হিসেবে স্মিথের থেকে এগিয়ে কোহলি,মন্তব্য প্রাক্তন অজি অধিনায়কের

নতুন এই পয়েন্ট সিস্টেমের দৌলতে ১১৬ পয়েন্ট নিয়ে এক নম্বরে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে নিউজিল্যান্ড। তাদের প্রাপ্ত পয়েন্ট ১১৫। ১১৪ পয়েন্ট নিয়ে তিন নম্বরে রয়েছে ভারত। টেস্ট র‍্যাঙ্কিং শুরু হওয়ার পর থেকে এই নিয়ে দ্বিতীয়বারের জন্য প্রথম তিন টেস্ট খেলিয়ে দেশের মধ্যে পয়েন্ট ব্যাবধান এত সামান্য রয়েছে। এর আগে ২০১৬ সালের প্রথমদিকে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের থেকে মাত্র এক পয়েন্ট এগিয়ে ছিল এক নম্বরে থাকা ভারত।

আরও পড়ুনঃ'বাট্টা বোমা'র তালে শরীরী মোচড় সস্ত্রীক ডেভিড ওয়ার্নারের, মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও

এই নতুন তালিকায় সবথেকে ধাক্কা খেয়েছে প্রোটিয়ারা। দক্ষিণ আফ্রিকা ৮ পয়েন্ট খুইয়ে শ্রীলঙ্কার নীচে ছয় নম্বরে অবস্থান করছে আপাতত। ২০১৬-১৭ মরসুমে তিনটি সিরিজ জিতেছিল প্রোটিয়ারা। কিন্তু সেই সময়ের সিরিজ গুলো নতুন নিয়মের হিসাবের আওতায় আসেনি। ২০১৯ এর ফেব্রুয়ারি থেকে নয়টি সিরিজের মধ্যে আটটি সিরিজ হেরেছে প্রোটিয়ারা। তার ফলেই এতটা নেমে গিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

অবশ্য বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে ভারত। চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হওয়ার পর থেকে নিউজিল্যান্ড সিরিজটি বাদ দিলে বাকি সব সিরিজে পুরো পয়েন্ট পেয়েছে তারা। অন্যদিকে পয়েন্ট নষ্ট করে ভারতের থেকে অনেকটাই পিছিয়ে আছে অন্যান্য দলগুলি। ন’টি টেস্ট খেলিয়ে দেশের প্রত্যেকে ছ’টি করে সিরিজ খেলবে। তারপরে প্রথম দুই দেশের মধ্যে ফাইনালের মাধ্যমে ঠিক হবে এই চ্যাম্পিয়নশিপের জয়ী দেশের নাম। ফাইনালটি অনুষ্ঠিত হবে ক্রিকেটের মক্কা ইংল্যান্ডের লর্ডস-এর মাটিতে।