বিরাট কোহলি ও স্টিভ স্মিথ। বর্তমান ক্রিকেটের দুই অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান। এই বিষয়ে সন্দেহ নেই কারোরই। কিন্তু যখনই প্রশ্ন ওঠে কে সেরা? বিরাট কোহলি না স্টিভ স্মিথ। তখন থেকেই শুরু হয় বিতর্ক। ওঠে তথ্য,পরিসংখ্যান ও তর্কের ঝড়। কেউ এগিয়ে রাখেন ভারত অধিনায়ককে, কেউ এবার স্মিথকে। কিন্তু যখন কোনও প্রাক্তন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক এগিয়ে রাখেন বিরাট কোহলিকে। তখন নতুন মাত্রা পায় সেই বিতর্ক। আর সেই কাজই করলেন ইয়ান চ্যাপেল।

আরও পড়ুনঃলকডাউনে খান ডাল-ভাত-চোখা,মোবাইল সিনেমার মাধ্যমে বার্তা বাংলার ক্রিকেটারদের

লকডাউনের সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে সক্রিয়তা বেড়েছে প্রাক্তন তথা বর্তমান ক্রিকেটারদের। সম্প্রতি এক ভারতীয় ক্রিকেট ওয়েবসাইটের সঙ্গে ইনস্টাগ্রাম লাইভ চ্যাটে এসেছিলেন ইয়ান চ্যাপেল। সেই চ্যাট শো-এ প্রাক্তন অস্ট্রেলীয় অধিনায়ককে বেছে নিতে বলা হয় বিরাট কোহালি ও স্টিভ স্মিথের মধ্যে যে কোনও একজনকে। চ্যাপেল সেই সময় সঞ্চালককে জিজ্ঞেস করেন অধিনায়ক হিসেবে বাছতে নাকি ব্যাটসম্যান হিসেবে। যে কোনও ভূমিকার জন্যই চ্যাপেলকে তাঁদের মধ্যে একজনকে বেছে নিতে বলা হয়। সেই সময় অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক জানান, “ব্যাটসম্যান অথবা অধিনায়ক, যে কোনও ভূমিকাতেই কোহালিকে বেছে নেব স্মিথের আগে।” চ্যাপেলের এই উত্তরের পরই বিস্মিতক্রিকেট মহল। অধিনায়ক হিসেবে দেশকে ৭৫টি টেস্ট ও ১৬টি ওয়ান ডে-তে নেতৃত্ব দিয়েছে   ইয়ান চ্যাপেল। এহেন প্রাক্তন অজি অধিনায়কের মুখ থেকে কোহলি স্তুতির ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। 

আরও পড়ুনঃ'বাট্টা বোমা'র তালে শরীরী মোচড় সস্ত্রীক ডেভিড ওয়ার্নারের, মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও

আরও পড়ুনঃফুটবলারদের একা একা ট্রেনিং সেন্টারে গিয়ে ট্রেনিংয়ের অনুমতি দিল লা লিগা কর্তৃপক্ষ

কোহলির থেকে স্মিথকে পিছিয়ে রাখাই শুধু নয়, অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হিসেবেও যে স্মিথকে খুব একটা পছন্দ নয় ইয়ান চ্যাপেলের তাও পরিষ্কার করেছেন তিনি। তিনি বলেছেন, “বল-বিকৃতি কাণ্ড না হলে অস্ট্রেলিয়াকে কয়েক বছরের মধ্যেই নেতৃত্ব দিতে পারত ডেভিড ওয়ার্নার। ওর চিন্তাধারা প্রচণ্ড আগ্রাসী। একজন আদর্শ অধিনায়কের মতো।” যোগ করেন, “ওয়ার্নারের মতো ক্রিকেট মস্তিষ্ক অনেকেরই নেই। স্মিথের থেকেও অনেক আগ্রাসী।" যদিও এই বিষয়ে এখনও কোনও মন্তব্য করেননি স্টিভ স্মিথ। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ায় চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে ইয়ান চ্যাপলের কোহলি প্রেম।