২০০৩ বিশ্বকাপে অধিনায়ক হিসেবে ভারতীয় দলকে ফাইনালে তুলেছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। কিন্তু স্বপ্ন পূর্ণ হয়নি। ফাইনালে সেই সময়ের অপ্রতিরোধ্য অস্ট্রেলিয়া দলের কাছে হারতে হয়েছিল টিম ইন্ডিয়াকে। তারপর ২০১১ সালে ধোনির নেতৃত্বে বিশ্ব জয়ের স্বাদ পায় ভারত। গত বার সেমিফাইনালে কোহালিদের স্বপ্ন চুরমার হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু ২০০৩ সালের সেই দলে সুযোগ পেলে বর্তমান ভারতীয় ক্রিকেট দল থেকে কাকে কাকে নিতেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। একটি শোয়ে যোগ দিয়ে সেই কথাই জানালেন বর্তমান বিসিসিআই পিরেসিডেন্ট।

আরও পড়ুনঃসার্জিও র‍্যামোসের গোলে তিন পয়েন্ট নিশ্চিত করলো রিয়াল মাদ্রিদ

ভারতীয় টেস্ট দলের ওপেনার মায়াঙ্ক আগরওয়ালের সঙ্গে বিসিসিআই টিভি-তে লাইভ চ্যাটে যোগ দিয়েছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। সেখানেই মায়াঙ্ক সৌরভকে প্রশ্ন করেন, বর্তমান ভারতীয় দল থেকে কাকে কাকে তার ২০০৩ সালের টিমে কাদের নিতেন? সৌরভের অকপট জবাবা, রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি ও জশপ্রীত বুমরা। তার উত্তরের স্বপক্ষে জবাব দিয়ে সৌরভ জানিয়েছেন,'আমরা সে বার দক্ষিণ আফ্রিকায় খেলেছিলাম। আমাদের বোলিং বিভাগ বেশ ভাল ছিল। আর ওরা ভাল বলও করেছিল। তবুও আমি বুমরাকেই চাই। বুমরার সঙ্গে কোহালি ও রোহিতকে নিতাম সে বারের দলে। রোহিত ওপেন করত আর আমি তিন নম্বরে নামতাম। বিরাট মিডল অর্ডারে। এটা শুনে বীরেন্দ্র সহবাগ হয়তো কালই আমাকে ফোন করে বলবে, ‘নিজেকে কী মনে করো'।

আরও পড়ুনঃবর্তমানে বিশ্বের সব থেকে 'সেক্সিয়েস্ট অ্যাথলিট', জানুন আলিশা স্মিডের কাহিনি

আরও পড়ুনঃচিনে নিন মাঝমাঠের কান্ডারীদের,যারা এই মরশুমে দলের হয়ে ফুল ফুটিয়েছেন

কোহলি, রোহিত ও বুমরাকে দলে রাখলেও ধোনিকে দলে রাখেননি সৌরভ। যার নেতৃত্বে বিশ্বকাপ জিতল ভারত, যার কিপিং ও ম্যাচ ফিনিশ করার ক্ষমতা বিশ্ব জুড়ে সমাদৃত তাকে কেনও দলে নিলেন না সৌরভ তা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে।  জবাবে সৌরভ জানান, ধোনিকে দলে রাখতে পারলে অবশ্যই ভাল হত। কিন্তু মনে রাখতে হবে ২০০৩ বিশ্বকাপে দুরন্ত ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি অবিশ্বাস্য কিপিং করেছিল রাহুল দ্রাবিড়। তাই তাকে দলে রাখতেই হত।' একইসঙ্গে সৌরভ মায়াঙ্ককে জানিয়ে দেন, তুমি যেহেতু তিন জন ক্রিকেটার বলেছো তাই রোহিত, কোহলি ও বুমরাইকে বেছেনিলাম। ফলে চতুর্থ জনকে বাছার সুযোগ তাকলে তা যে ধোনিই হত প্রকারন্তরে তাও বুঝিয়ে দেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।