চেতশ্বর পুজারা ও ঋষভ পন্থের আউটের পর সিডনি টেস্টে হারের ভ্রুকুটি ছিল ভারতীয় দলের সামনে। কিন্তু হনুমা বিহারী ও রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ধৈর্যশীল ব্যাটিং, উইকেট কামড়ে ঘণ্টার ঘণ্টার ক্রিজে টিকে থেকে অস্ট্রেলিয়ার মুখের সামনে থেকে জয় গ্রাস কেড়ে নিল। কার্যত হারা ম্যাচ ড্র করে সিরিজে সমতা বজায় রাখল অজিঙ্কে রাহানের ভারতীয় দল। অপরদিকে, জেতা ম্যাচ ড্র হওয়ায় কিছুটা হলেও হতাশ ব্যাগি গ্রিন ব্রিগেড। ৩ ম্যাচ শেষে সিরিজে ফলাফল ভারত ১, অস্ট্রেলিয়া ১। ব্রিসবেনে চতুর্থ টেস্ট হবে সিরিজের ভাগ্য নির্ধারণ।

প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়া করে ৩৩৮ রান। ভারতের প্রথম ইনিংস শেষে হয় ২৪৪ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে ৩১২ রানে ইনিংস ডিক্লেয়ার করে ব্যাগি গ্রিনরা। প্রথম ইনিংসে ৯৬ রানের লিড নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ৪০৭ রানের টার্গেট তাড়া করতে নামে ভারতীয় দল। চতুর্থ দিনের শেষে ক্রিজে ছিলেন চেতশ্বর পুজারা ও অধিনায়ক অজিঙ্কে রাহানে। কিন্তু দিনের শুরুতেই আউট হন রাহানে। এরপর ভারতীয় ইনিংসের রাশ ধরেন ঋষভ পন্থ ও চেতশ্বর পুজারা। ১৪২ রানের পার্টনারশিপ করেন তারা। চোট নিয়েও ঋষভ পন্থের ব্যাটিং নজর কাড়ে সকলের। সেঞ্চুরি হাতছাড়া হলেও ৯৭ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস খেলেন পন্থ। অপরদিক থেকে পুজারা লড়াই চালিয়ে গেলেও ৭৭ রান করে আউট হন তিনি। পুজারা আউট হওয়ার সময় ভারতীয় দলের স্কোর ছিল ২৭২। সেই সময় অনেকেই ধরে নিয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার জয় শুধু সময়ের অপেক্ষা। 

কিন্তু হনুমা বিহারী ও রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ইচ্ছা ছিল একটু অন্য। ম্যাচ জয়ে সুযোগ না থাকলেও, সেশনের পর সেশন ধৈর্য ধরে ব্যাট করে যান তারা। অস্ট্রেলিয়া পেস অ্যাটাকের বাউন্সার, ইয়র্কার, সুইং সব কিছু মোকাবিলা করেন হনুমা ও অশ্বিন। অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের সব প্রয়াস ব্যর্থ করতে থাকেন তারা। ১৬১ বলে ২৩ রানের ইনিংস খেলেন হনুমা ও ১২৮ বলে ৩৯ রানের ইনিংস খেলেন অশ্বিন। দিনের শেষে অস্ট্রেলিয়ার মুখের সামনে থেকে জয় ছিনিয়ে নিয়ে ম্যাচ ড্র করল ভারত। হনুমা ও অশ্বিনের এই অনবদ্য ইনিংস কোনও জয়ের থেকে কম নয় বলেই মনে করছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। আর হারের মুখ থেকে যেভাবে ম্যাচ বাঁচালো হনুমা ও অশ্বিন তাতে ভারতীয় দলের নৈতিক জয় বলেই মনে করা হচ্ছে।