দ্বিতীয় দিনের পর তৃতীয় দিনেও বল হাতে ভারতকে ভরসা দিলেন ইশান্ত শর্মা। ভারত যে এখনও ম্যাচ থেকে পুরোপুরি হারিয়ে যায়নি তার পেছনে সিংহভাগ কৃতিত্ব ইশান্ত শর্মার। দ্বিতীয় দিনে তুলেছিলেন তিন উইকেট, তৃতীয় দিনে তুলে নিলেন আরো দুটি উইকেট। কিন্তু ইশান্ত ছাড়া আর কোনো বোলার তেমন কোনো প্রভাব ফেলতে পারেননি। ইশান্তের ৫ উইকেটের পাশাপাশি ৩ উইকেট নেন অশ্বিন। ওয়ান-ডে সিরিজ থেকে চলতে থাকা উইকেটের খরা কাটিয়ে রবিবার অনেক দিন পরে উইকেট পান বুমরা। তিনি ফেরান নিউজিল্যান্ড উইকেটরক্ষক বি জে ওয়েটলিং কে। কিন্তু তা বাদে তেমন কোনো প্রভাব ফেলতে পারেননি তিনি। উলটে নিউজিল্যান্ডের নিম্ন ক্রমের খেলোয়াড়রা ব্যাট হাতে অস্বস্তি বাড়ায় ভারতের।

শুধু বল হাতেই নয়, প্রয়োজনে ব্যাট হাতেও দলকে ভরসা জোগাতে তিনি সিদ্ধহস্ত। অভিষেকে বুঝিয়ে দিলেন ৬ ফুট ৮ ইঞ্চির কাইল জেমিসন। অষ্টম উইকেটে কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের সঙ্গে তার ৭১ রানের পার্টনারশিপে ভর করে তৃতীয়দিন প্রথম ইনিংসে নিজেদের লিড বড়িয়ে নিল নিউজিল্যান্ড। ৪৪ রান করলেন জেমিসন। ৪৩ রান এল গ্র্যান্ডহোমের ব্যাট থেকে। শেষদিকে ৩৮ রানের মূল্যবান অবদান রাখলেন ট্রেন্ট বোল্টও। ৩৪৮ রানে থামল নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংস। তারপর ব্যাট করতে নেমে ১৪৪ রানে ৪ উইকেট হারায় ভারত। তৃতীয় দিনের খেলার শেষে উইকেটে রয়েছেন অজিঙ্কা রাহানে এবং হনুমা বিহারী। বড়সর কোনো অঘটন না ঘটলে ম্যাচের ফল নিউজিল্যান্ডের পক্ষেই যেতে চলেছে। 

এই নিয়ে টেস্টে বল হাতে ১১ বার পাঁচ উইকেট তুলেছেন ইশান্ত। তার মধ্যে ৯ বারই তিনি বিদেশের মাঠে এই কীর্তি ঘটিয়েছেন। আজকে ৫ উইকেট তোলার পর তিনি ছুঁয়ে ফেললেন জাহির খানকে। তাছাড়াও নিউজিল্যান্ডে এই নিয়ে তৃতীয় বার ৫ উইকেট নিলেন তিনি। তার মধ্যে ২ বারই বেসিন রিসার্ভে। এর আগে ২০১৪ সালে এই মাঠে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। এখন তার বোলিং কাজে লাগবে কিনা তা নির্ভর করবে ব্যাটসম্যানদের ওপর।