বিগত বেশ কয়েক দিনে মহেন্দ্র সিং ধোনির অবসর নিয়ে মন্তব্য করতে শোনা গিয়েছে একাধিক প্রাক্তন থেকে বর্তমান ক্রিকেটারদের। লকডাউনের সময় কার্যত হট টপিক হয়ে উঠছে মাহির অবসর। দেশি -বিদেশি তারকারা টিপ্পনি করেছে ধোনির অবসর নিয়ে। ধোনির অবসরের সঠিক সময় ছিল ২০১৯ বিশ্বকাপের পরে বলে মন্তব্য় করেছেন পাকিস্তানি স্পিড স্টার শোয়েব আখতার। জাতীয় দলে ফেরার ধোনির কোনও সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন মাহির প্রাক্তন সতীর্থ গৌতম গম্ভীর। প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক কৃষ্ণমাচারি শ্রীকান্তও বলেছেন ধোনি দলে ফেরা কঠিন। অবসর নিয়ে নেওয়া উচিত। ধোনির টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দলে ফেরা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। শুধ ধোনির বিপক্ষেই নয়, পক্ষেও বলেছেন অনেকে। প্রাক্তন ইংল্যান্ড অধিনায়র নাসির হুসেন বলেছেন এখনও ধোনিকে অবসরের দিকে ঠেলে দেবেন না। এমন প্লেয়ার শতাব্দীতে খুব কম আসে। চেন্নাই সুপাক কিংসে মাহির সতীর্থ তথা একদা ভারতীয় দলের তীর্থ সুরেশ রায়না বলেছেন, ধোনির এখনও ক্রিকেটকে অনেক কিছু দেওয়ার বাকি। এবার ধোনি হয়ে ব্যাট ধরলেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার মহম্মহ কাইফ। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দলে ধোনিকে রাখার পক্ষেও সওয়াল করলেন কাইফ।
আরও পড়ুনঃটি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজনের অভিনব উপায় বাতলালেন প্রাক্তন অজি তারকা ব্র্যাড হগ
আরও পড়ুনঃভাঙা হাঁটু নিয়ে গোটা বিশ্বকাপ খেলেছিলেন মহম্মদ সামি, নিজেই ফাঁস করলেন সেই রহস্য
আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতীয় দলে মহেন্দ্র সিংহ ধোনিকেই কিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে দেখতে চাইছেন মহম্মদ কাইফ।লোকেশ রাহুলকে নিয়মিত উইকেটকিপারের ভূমিকায় দেখতে চাইছেন না কাইফ। সংবাদ সংস্থাকে কাইফ বলেছেন, “অনেকেই ভবিষ্যতে আমাদের প্রধান কিপার হিসেবে লোকেশ রাহুলের কথা ভাবছেন। কিন্তু আমার মনে হয় ব্যাকআপ উইকেটকিপার হিসেবেই রাহুলকে ব্যবহার করা উচিত। প্রধান কিপার যদি চোট পায় বা দলের সঙ্গে না থাকে, তবেই রাহুলকে দিয়ে কিপিং করানো উচিত। কারণ, প্রধান কিপার হিসেবে রাহুলের উপরই নির্ভর করলে ওয়ার্কলোডের বৃদ্ধির সঙ্গে ওর চোটের আশঙ্কা বাড়বে।”  মহম্মদ কাইফের কথায়, “আইপিএলে ধোনি কেমন করে তা দেখতে চাইছিলেন অনেকে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়েও চর্চা চলছিল। তবে আমার মত অন্যদের থেকে আলাদা। আইপিএলের ফর্মের পরিপ্রেক্ষিতে আমি ধোনির বিচার করছি না। ও গ্রেট ব্যাটসম্যান। যথেষ্ট ফিটও বটে। আইপিএল খেলতে চাইছে। নেতৃত্ব দিচ্ছে। খেলতে আগ্রহীও। ওর মধ্যে জেতার মানসিকতা রয়েছে। চাপের মধ্যে কী ভাবে জেতাতে হয়, তা ও জানে। তাই ওকে বাদ দেওয়া অনুচিত। ধোনির মধ্যে প্রচুর ক্রিকেট বাকি রয়েছে। আর মতো লম্বা সময় ধরে খেললে কেরিয়ারে চড়াই-উতরাই থাকবেই। শুধু ধোনি নয়, প্রত্যেকের সঙ্গেই এটা ঘটে।” তাকে নিয়ে এত চর্চা হলেও এখনও নিজের অবসর ও ভারতীয় দলে ফেরা প্রসঙ্গে কোনও কথাই বলেননি ধোনি। মাহি অনুগামীদের মতে, সব জবাব মাঠেই দেবেন এম.এস.ডি।
আরও পড়ুনঃলকডাউনে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়ার ঐতিহাসিক ইডেন টেস্টের স্মৃতিচারণায় সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়