সত্যিই এবারের আইপিএল অন্য সব বারের থেকে আলাদা। করোনা আবহে স্বাস্থ্যবিধি কথা মাথায় রেখে কড়া নিয়ম চালু করেছে বিসিসিআই। নিয়মিত করোনা পরীক্ষী, জৈব সুরক্ষা বলয়, চিপ ট্র্যাকার, মাঠ আর হোটেল ছাড়া কোথাও এক পা বাড়ানোতেও নিষেধাজ্ঞা আরও কত নিয়ম লাগু করা হয়েছে প্লেয়ার সহ গোটা দলের অন্যান্য সদস্যদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সুরক্ষার কথা ভেবে। শুধু বাকি ছিল হয়তো ডোপ টেস্টটা। এবার সেটাও হতে চলেছে বলে জানানো হয়েছে নাডার তরফে। এই প্রথমবার আইপিএল-এ ক্রিকেটারদের ডোপ পরীক্ষা করতে চলেছে নাডা।

আরও পড়ুনঃমরু শহরে তিনটি ভেন্যুতে হবে আইপিএলের ম্যাচ, জেনে নিন স্টেডিয়ামগুলির খুটিনাটি

করোনা আবহে ডোপ বিতর্ক যেন কোনওভাবেই বিদেশের মাটিতে আইপিএলের শিরোনামে না চলে আসে সে, সেই কারণেই সব রকম পদক্ষেপ নিচ্ছে নাডা। জানা গিয়েছে, ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি বা নাডা এবং আরব আমিরশাহির ন্যাশনাল অ্যান্টি ডোপিং কমিটি  যৌথভাবে ক্রিকেটারদের ডোপ টেস্ট করবে। ইতিমধ্যেই নাডা তাদের পরিকল্পনা তৈরি করে ফেলেছে। এছাড়া শোনা যাচ্ছে, ৩ জন শীর্ষ কর্তা এবং ৬ জন ডোপ কন্ট্রোল অফিসার যাচ্ছেন মরুদেশে। প্রয়োজনে পরবর্তী সময়ে নাডার আরও আধিকারিককে পাঠানো হতে পারে আরব আমিরশাহি। 

আরও পড়ুনঃপ্রতিযোগিতা শুরুর আগেই চলে গেল স্পনসর, জোক ধাক্কা সৌরভের আইপিএলে

আরও পড়ুনঃক্যাপ্টেন কুল নাম তাঁর, কিন্তু এই ৬ ঘটনায় মেজাজ হারিয়ে মাঠেই গালিগালাজ করেছিলেন ধোনি

নাডা যে পরিকল্পনা তৈরি করেছে সেই অনুসারে, আইপিএলের তিনটি ভেন্যু অর্থাৎ দুবাই, আবু ধাবি এবং শারজাতে তিনটি ডোপ কন্ট্রোল স্টেশন তৈরি করতে চলেছে নাডা। এই তিনটি জায়গায় ২ জন করে উপস্থিত থাকবেন নাডার আধিকারিকরা। এছাড়াও যে দুটি অনুশীলনের মাঠ রয়েছে সেখানে আরও দুটি ডোপিং কন্ট্রোল স্টেশন তৈরি করা হবে। সেখানে উপস্থিত থাকবেন  আমিরশাহির অ্যান্টি ডোপিং অর্গানাইজেশনের কর্তারা। নাডার পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, আইপিএল চলাকালীন ৫০ জন ক্রিকেটারের স্যাম্পেল নেওয়া হবে। যার মধ্যে রক্ত এবং মূত্রের নমুনা সংগ্রহ করা হবে।আইপিএল শুরুর আগে এমনকি আইপিএল চলাকালীন ভারতীয় ক্রিকেট তারকা বিরাট কোহলি, মহেন্দ্র সিং ধোনি, রোহিত শর্মাদের ডোপ পরীক্ষা করা হবে। পরিকল্পনা থেকে এটুকু পরিষ্কার যে করোনা আবহে আইপিএলে ডোপিংয়ের বিষয়টি কোনওভাবেই হালকাভাবে নিতে নারাজ নাডা।