বিশ্ব জুড়ে নিজের মারণ থাবা বিস্তার করেই চলেছে করোনা ভাইরাস। দ্রুত গতিতে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। পরিস্থিতি মোকাবিলায় গোটা বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন। তারপরও ঠেকানো সম্ভব হচ্ছে সংক্রমণকে। ডাক্তার, পুলিস-প্রশাসন, বিজ্ঞানীা দিন-রাত চেষ্টা করেও বাগে আনতে পারছে না এই প্রাণপিপাসু ভাইরাস। বিজ্ঞান কারযত নতি স্বীকার করছে এই অদৃশ্য ভাইরাসের কাছে। করোনার জেরে বাতিল বা স্থগিত হয়ে গিয়েছে বিশ্বের সব স্পোর্টিং ইভেন্ট। অলিম্পিক এক বছর পিছিয়ে গেলেও, পরের বছরও অলিম্পিকের ভবিষ্যৎ নিয়ে তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। ক্রিকেট, ফুটবল, হকি, ব্যাডমিন্টন, টেনিস সব ক্ষেত্রেই একই অবস্থা। অনির্দিষ্ট কালের জন্য পিছিয়ে গিয়েছে আইপিএলও। এই পরিস্থিতিতে দেশবাসীর উদ্বেগ আরও বাড়ালেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। ভারতীয় ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ নিয়ে মুখ খুললেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট। 

আরও পড়ুনঃহেড কোচ হিসেবে কিবু ভিকুনার নাম ঘোষণা করল কেরালা ব্লাস্টার্স

মঙ্গলবার দেশের প্রথম সারির এক সংবাদমাধ্যমকে সৌরভ জানান, ক্রিকেটের থেকে মানুষের জীবন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। মহারাজের কথায়, ‘জার্মানি এবং ভারতের সামাজিক চিত্রটা বাস্তবিক ক্ষেত্রে অনেকটা আলাদা। ভারতবর্ষে অদূর ভবিষ্যতে ক্রিকেটের কোনও সম্ভাবনা নেই।’ বিসিসিআই প্রেসিডেন্টের আরও সংযোজন, ‘ক্রিকেট আয়োজনের বিষয়টিতে এইমূহূর্তে প্রচুর যদি কিন্তু জড়িয়ে রয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা মানুষের জীবন যেখানে বিপন্ন, সেখানে আমি ক্রিকেটে বিশ্বাসী নই।’ সৌরভের মন্তব্যকে সমর্থন করেছেন তাঁর এককালের সতীর্থ হরভজন সিং। প্রাক্তন ভারতীয় স্পিনারের কথায়, “আইপিএলের সময় যখন সমস্ত দল এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যায়, তখন স্টেডিয়াম, হোটেল, বিমানবন্দর, সর্বত্রই প্রচুর ভিড় জমে যায়। সে সময় কোনওভাবেই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হবে না। প্রতিষেধক না এলে ক্রিকেট ফেরানো উচিত হবে না।”

আরও পড়ুনঃ৯৯ তে আউট ধওয়ান, অল্পের জন্য হাতছাড়া সেঞ্চুরি,দেখুন ভিডিও

আরও পড়ুনঃস্মিথ, ওয়ার্নার সমৃদ্ধ অস্ট্রেলিয়ার সাথে টেস্ট সিরিজ জিততে মরিয়া রোহিত শর্মা

সৌরভের মন্তব্য নিঃসন্দেহে তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে ক্রিকেট মহলের একাংশ। কারণ চলতি বছর এখনও আইপিএল দেখার আশায় দিন গুণছেন অগণিত ক্রিকেটপ্রেমী। তবে সৌরভের এই মন্তব্যে তা যেন আরও অনিশ্চয়তার অন্ধকারে প্রবেশ করল। সেই সঙ্গে এই বছরই এশিয়া কাপ, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অংশ নেওয়ার কথা টিম ইন্ডিয়ার। এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ভবিষ্যৎও প্রশ্ন চিহ্নের মুখে। কিন্তু পরিস্থিতি কী মোড় নেবে, তা বলা কঠিন। এর শেষ কোথায় জানা নেই। অন্ধকারে বিশ্ববাসীর ভবিষ্যৎও। এমন পরিস্থিতিতে ফের কবে মাঠে বল গড়াবে। ফের কবে হাততালি আর কোলাহলে গর্জে উঠবে স্টেডিয়াম। সেই অপেক্ষাতেই দিন গুনছেন সকলে।