কয়েকদিন আগেই নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছিল গোটা অসম। পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাওয়ায় জারি করা হয়েছিল কারফিউ, বন্ধ ছিল ইন্টারেনট। বিক্ষোভ বন্ধ হওয়ার পর এখন প্রায় স্বাভাবিক গুয়াহাটির পরিস্থিতি। তার মধ্যেই রবিবার সেখানে টি টোয়েন্টি ম্যাচে শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হচ্ছে বিরাট কোহলির ভারত। 

সেই ম্যাচ ঘিরেই বেনজির সিদ্ধান্ত নিল গুয়াহাটি পুলিশ। অসম ক্রিকেট অ্যাসোশিয়সনের তরফে শুক্রবার সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, খেলার দিন স্টেডিয়ামে কোনও রকমে পোস্টার, ব্যানার এবং লিখিত কোনও বার্তা নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না। শুধু তাই নয়, ছেলেদের ওয়ালেট, মেয়েদের হ্যান্ডব্যাগ, মোবাইল ফোন এবং গাড়ির চাবি ছাড়া কোনও কিছু নিয়েই প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। 

অসম ক্রিকেট সংস্থার তরফে সচিব দেবজিৎ সালকিয়ার অবশ্য দাবি, এর সঙ্গে নাগিরকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভের কোনও সম্পর্ক নেই। শুধুমাত্র সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবেই এই পদক্ষেপ করা হচ্ছে। নিজের দাবির স্বপক্ষে প্রমাণ দিতে গিয়ে অসম ক্রিকেট সংস্থার সচিব ২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ার টিম বাসে পাথর হামলার কথা মনে করিয়ে দেন। ওই কর্তার আরও দাবি, টি টোয়েন্টি খেলা চলাকালীন মাঠে উপস্থিত দর্শকদের হাতে চার, ছয় লেখা যে ছোট প্ল্যাকার্ড ধরা থাকে, সেগুলিও এই খেলায় দেখা যাবে না। কারণ যে পানীয় সংস্থার নাম ওই প্ল্যাকার্ডগুলি-তে লেগে থাকত, সেটির সঙ্গে ইতিমধয্যেই বিসিসিআই-এর চুক্তি শেষ হয়ে গিয়েছে। 

সালকিয়া বলেন, 'এটি একটি আন্তর্জাতিক স্পোর্টস ইভেন্ট। ফলে আমাদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা দেওয়ার ব্যবস্থা করতেই হবে।' অসম ক্রিকেট সংস্থার সচিব যাই বলুন না কেন, এই নির্দেশিকার পিছনে যে সিএএ বিক্ষোভই অন্যতম কারণ, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।