ফিট ইন্ডিয়া মুভমেন্ট-এর বর্ষপূর্তি উপলক্ষে কেন্দ্রীয় সরকার একটি ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল। করোনা আবহে যতদিন না ভ্যাকসিন আসছে, ততদিন মানুষের ফিটনেসই একামাত্র ভরসা সেই বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠান থেকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, 'মানুষ স্বাস্থ্যকর খাবারে অভ্যস্ত হয়েছে, এতে আমি খুব খুশি। ফিট থাকাটা কঠিন কোনও কাজ নয়। শুধু একটু নিয়মানুবর্তী থাকলেই তা করা যায়।' ফিট ইন্ডিয়া গড়ে তুলতে প্রধানমন্ত্রীর নয়া স্লোগান, 'ফিটনেস কি ডোজ, আধা ঘণ্টা রোজ।'অনুষ্ঠানে দেশের খ্যাতনামা ক্রীড়াবিদ ও ফিটনেস বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি, মিলিন্দ সোমনের মতো তারকারা। 

আইপিএলের ব্যস্ততার মধ্যেও দেশবাসীর জন্য সময় দেওয়ার জন্য বিরাট কোহলিকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।  অনুষ্ঠানে ফিটনেসের গুরুত্ব ও তিনি নিজের কীভাবে ফিটনেসকে সব থেকে বেশি অগ্রাধিকার দেন সেই কথা তুলে ধরেন বিরাট কোহলি। ফিটনেস নিয়ে ক্রিকেটার বিরাট কোহলি বলেন, 'কোনওদিন প্র্যাকটিস মিস হয়ে গেলেও এমন কোনও দিন হয় না, যে দিন আমি আমার ফিটনেস সেশন বন্ধ রাখি।' অনুষ্ঠানে মজা করে কোহলিকে প্রধানমন্ত্রী জিজ্ঞেস করেন, তিনি দিল্লির  'ছোলে বাটোরে' মিস করেন  কিনা। সেই সময় কোহলি বলেন,'স্বাস্থ্যকর খাওয়া দাওয়া ও সুনির্দিষ্ট ডায়েট মেনে চলে তার খেলায় কতটা উন্নতি হয়েছে তা তিনি নিজেই জানেন।' স্বাস্থ্যকর খাওয়া দাওয়া করলে পুরো দেশবাসীরও উপকার হবে বলে জানান কোহলি।

শরীর আর মন ঠিক রাখতে ফিটনেস ট্রেনিং প্রধান হাতিয়ার বলে জানিয়েছেন ক্যাপ্টেন কোহলি। সময়ের সঙ্গে কীভাবে খেলাধূলায় ফিটনেসে উন্নতি এসেছে তা নিজের অভিজ্ঞতার মাধ্যমে দেশবাসীর সামনে ভাগ করে নেন ভারত অধিনায়ক। ইয়ো ইয়ো টেস্ট প্রসঙ্গে বিশ্ব ক্রিকেটে ফিটনেসের বেঞ্চমার্ক বিরাট কোহলি প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নের উত্তরে বলেন আগামী দিনে ভারতও অন্যান্য দেশগুলিকে ফিটনেসে ঠিক টেক্কা দেবে। আগামি বছরের শুরুতেই কোহলি ও অনুষ্কা পরিবারে আসবে নতুন অতিথি। তাই অনুষ্ঠানের শেষে অনুষ্কা শর্মার সুস্বাস্থ্যও কামনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।