গুরুতর সমস্যায় পড়লেন ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অলরাউন্ডার যুবরাজ সিং। যুজবেন্দ্র চাহাল এবং কুলদীপ যাদবকে নিয়ে একটি বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্য করার দায়ে তাঁর বিরুদ্ধে হরিয়ানার হিসার জেলার হানসি থানায় অভিযোগ জানালেন দলিত অধিকার কর্মী তথা আইনজীবী রজত কলসন।

লকডাউনের সময় সোশ্য়াল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম 'টিকটক'-এ রোহিত শর্মার সঙ্গে  আড্ডা দিতে গিয়ে প্রাক্তন বাঁহাতি অলরাউন্ডার যুবরাজ, 'কুলচা' জুটি অর্থাৎ কুলদীপের এবং চাহাল সম্পর্কে জাতিবিদ্বেষী মন্তব্য করেছিলেন।

এই মন্তব্যগুলি মোটেই ভালভাবে নেননি রজত কলসন। তবে এই বিশিষ্ট আইনজীবী এখানেই থামেননি। রোহিত শর্মার বিরুদ্ধেও তিনি অভিযোগ করেছেন। তাঁর দাবি যুবরাজের ওই দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্যের বিরোধিতা করা উচিত ছিল ভারতীয় ওপেনারের। কিন্তু, যুবরাজের কথায় কোনওরকম অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেননি রোহিত। দুই ক্রিকেটারকেই গ্রেফতারের দাবি করেছেন এই দলিত অধিকারকর্মী।

যুবরাজ-রোহিত'এর এই কথোপকথন হয়েছিল গত এপ্রিল মাসে। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে ওই টিকটক ভিজিও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে ঝড় তুলেছে। য়ুবরাজের ভক্তরা মোটেই তাঁদের প্রিয় ক্রিকেটারের মুখ থেকে ওই মন্তব্য মেনে নিতে পারেননি। তারা দাবি করেছিলেন যুবরাজ প্রকাশ্যে দুঃখ প্রকাশ করুন ও ক্ষমা চান ওই মন্চব্যের জন্য। 

উল্লেখ্য এর আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও কাশ্মীর সম্পর্কে 'বেআইনি' মন্তব্য করার জন্য পাক ক্রিকেটার শাহিদ আফ্রিদি-কে একহাত নিয়েছিলেন যুবরাজ। তিনি বলেছিলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্রমোদি সম্পর্কে শআহিদ আফ্রিদির মন্তব্যে তিনি হতাশ। দেশের হয়ে খেলা একজন দায়িত্বশীল ভারতীয় হিসাবে, তিনি কখনই এ জাতীয় কথা মেনে নেবেন না। তবে এবার নিজেই দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য করে সমস্য়ায় পড়লেন।