ইশান্ত শর্মার চোট আগেই চিন্তা বাড়িয়েছিল। তারওপর প্রথম ইনিংসে ভারতের ২৪২ এ অল-আউট হওয়ার পর সমস্ত জল্পনাকে সত্য করে দেয় নিউজিল্যান্ডের ওপেনাররা। উমেশ, বুমরা, সামির যাবতীয় ছুড়ে দেওয়া প্রশ্ন সামলে দেন কিউয়ি ওপেনার টম ল্যাথাম এবং টম বান্ডেল। প্রথম দিনের শেষে ৬৩ রানে অপরাজিত থেকে প্যাভিলিয়নে ফেরেন দুই কিউয়ি ওপেনার।

দ্বিতীয় দিনে ভারতীয় বোলিংয়ের ওপর আশা রাখেনি কেউই। ঠিক এমন সময় প্রত্যাঘাত ভারতের। দ্বিতীয় দিনের শুরুতেই দলের স্কোরের সাথে মাত্র তিন রান যোগ করে উমেশ যাদবের বলে লেগ-বিফোর হয়ে ফেরেন টম বান্ডেল। এরপর অধিনায়ক উইলিয়ামসনকে ফিরিয়ে দ্বিতীয় ধাক্কাটি দেন বুমরা। এরপর থেকে মাঠে শুধুই দাপট চলে ভারতীয় পেস বোলারদের, বিশেষ করে সামির। তার আগুনে বোলিংয়ে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং অর্ডার। দুই উইকেট নিয়ে ভারতীয় পেসারদের যোগ্য সঙ্গত দেন দ্বিতীয় টেস্টে অশ্বিনের বদলে দলে আসা রবীন্দ্র জাদেজা।

গতকাল থেকে সেট থাকা অর্ধশতরান করে ভারতকে সমস্যায় ফেলে দেওয়া ওপেনার টম ল্যাথামকে ৫২ রানে ফিরিয়ে নিউজিল্যান্ডের শিবিরে বড়সড় ধাক্কা দেন সামি। সামির গতির কাছে পরাস্ত হয়ে বোল্ড হয়ে ফেরেন ল্যাথাম। এরপর ধীরে ধীরে সেট হতে থাকা হেনরি নিকলস কে ফেরান সামি। এরপর  অনেকক্ষণ ধরে উইকেটে থেকে ভারতের রানকে প্রায় ধরে ফেলেছিল জেমিসন এবং ওয়াগনার। কিন্তু দুজনকেই প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠিয়ে ভারতকে ৭ রানের লিড এনে দেন সামি। তাকে যোগ্য সঙ্গত দেন বুমরা এবং জাদেজা। উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন জেমিসন। দূরন্ত ক্যাচে নিল ওয়াগনারের উইকেট তুলতে সাহায্য করেন জাদেজা। অল্পের জন্য সিরিজে নিজের প্রথম ৫ উইকেট নেওয়ার সুযোগ হারান সামি।