বুধবারই আইসিসি প্রকাশ করা সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যানদের তালিকায় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে পেছনে ফেলে এক নম্বরে উঠে এসেছিলেন স্টিভ স্মিথ। আর বৃহস্পতিবার অ্যাসেজের মঞ্চে ডাবল সেঞ্চুরিতে প্রত্যাবর্তন  প্রাক্তন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভ স্মিথের। অ্যাসেজের প্রথম টেস্টে জোড়া সেঞ্চুরির পর দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসও শতরানের পথে এগোচ্ছিল স্টিভের ব্যাট। কিন্তু আর্চারের বাউন্সার ধাক্কা খেয়ে মাঠ ছাড়তে হয় বল ট্যাম্পারিং কান্ডে নির্বাসন কাটিয়ে ফেরা ক্রিকেটারটিকে। তৃতীয় টেস্টে তিনি খেলতে পারেননি সেই বাউন্সারের ঘায়ে। ইংল্যান্ড সেই ম্যাচে এক উইকেটে নাটকীয় জয় তুলে সিরিজে সমতা ফেরায় ইংল্যান্ড। তৃতীয় টেস্ট খেলতে না পারার আক্ষেপটা যেন সুদে আসলে চতুর্থ টেস্টে মেটালেন স্টিভ স্মিথ। 

চতুর্থ টেস্টে তিনি যখন ব্যাট হাতে ম্যাঞ্চেস্টারের ২২ গজে এলেন, তখন বেশ চাপে অস্ট্রেলিয়। কিন্তু স্টিভের চওড়া ব্যাটে ভর করে সেই চাপ থেকে বেড়িয়ে এসে, প্রথম ইনিংসে ৮ উইকেট হারিয়ে ৪৯৭ রান করল ক্যাঙ্গারুরা। যে জোফারা আর্চারের বলে আঘাত পেয়েছিলেন স্টিভ, সেই আর্চারকে ম্যাঞ্চেস্টারে যেন সাদামাটা বোলারের পর্যায়ে নামিয়ে আনলেন স্মিথ। ২৭ ওভার হাত ঘোরালেন ইংল্যান্ডের এই বোলার, কিন্তু তাঁর প্রাপ্তি শুন্য। ৬৫ রানে একবার মাত্র সুযোগ দিয়েছিলেন স্টিভ, সেটাও আর্চারের বলেই। কিন্তু ফলো থ্রুতে ক্যাচটা ধরতে পারেননি জোফরা। 

অ্যাসেজে এখনও পর্যান্ত চার ইনিংস ৫৮৯ রান করে ফেলেছেন প্রাক্তন অজি অধিনায়ক। গড় ১৪৭.২৫। ইংল্যান্ডের মাটিতেই নির্বাসন কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেছেন স্মিথ। এখানেই ফিরে পেয়েছেন সেরা টেস্ট ব্যাটসম্যানের সিংহাসন। স্মিথের চওড়া ব্যাট যেমন ইংল্যান্ডর দর্শকদের টিটকিরির জবাব দিচ্ছে, তেমনই বিরাটের সঙ্গে লড়াইটাও জমিয়ে দিচ্ছে।