লাদাখের গালওয়ান উপতক্যায় চিনা হামলা ২০ জন ভারতীয় সেনার শহীদ হওয়ার পর থেকেই উত্তাল গোটা দেশে। পালটা মারে হতাহত হয়েছে ৪৩ জন চিনা সেনা। ১৯৬২সালের পর আবার লাদাখে ভারত-চিন সীমান্ত অগ্নিগর্ভ। প্রতিবাদে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে উঠছে চিন বিরোধী স্লোগান। সরকারের কাছে চিনকে যোগ জবাব দেওয়ার দাবি জানানোর পাশাপাশি উঠেছে সমস্ত চিনা পণ্য বর্জনের আওয়াজও। চিনা দ্রব্যে আগুন ধরিয়েও চলছে প্রতিবাদ। কিন্তু দেশের এই আবহে অস্বস্তিতে পড়েছে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড। কারণ আইপিএল এর টাইটেল অর্থাৎ অন্যতম প্রধান স্পনসর চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থা ভিভো। ফলে ভারত চিন কূটনৈতিক সম্পর্কের অবনতির প্রভাব কী আইপিএলেও পড়বে এই নিয়ে উঠতে শুরু করেছিল প্রশ্ন। তবে বিসিসিআই পক্ষ থেকে পরিষ্কার জানিয়ে দেওয়া হয়েছে চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারী সংস্থা ভিভোই টাইটেল স্পনসর থাকবে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের।

আরও পড়ুনঃএবার করোনা ভাইরাসের থাবা সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বাড়িতে

এই বিষয়ে বিসিসিআইয়ের পক্ষ থেকে বোর্ডের কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমল জানিয়েছেন,'আবেগ দিয়ে ভাবলে অনেক সময়ই যুক্তিকে গুরুত্ব দেওয়া হয় না। আমাদের বুঝতে হবে যে, চিনের স্বার্থে চিনের সংস্থাকে সাহায্য করা আর ভারতের স্বার্থে চিনের অর্থনীতির সাহায্য নেওয়ার মধ্যের তফাত রয়েছে।” ২০২২ সাল পর্যন্ত ভিভোর সঙ্গে চুক্তি রয়েছে বোর্ডের। প্রত্যেক বছর ভিভোর থেকে বোর্ডের আয় ৪৪০ কোটি টাকা। ধুমলের মতে, চিনের কোম্পানি আইপিএলের জন্য অর্থ ব্যয় করলে তাতে দেশেরই লাভ।নিজের মতের স্বপক্ষে বোর্ডের কোষাধ্যক্ষ আরও বলেছেন,'আমরা যখন চিনের কোনও সংস্থাকে ভারতে পণ্য বিক্রির অনুমতি দিচ্ছি, তখন ওরা ভারতীয় ক্রেতার থেকে অর্থ নিয়ে চলে যাচ্ছে। তারই কিছুটা ওরা এখানে বোর্ডকে দিচ্ছে। আর বোর্ড আবার সেই অর্থের ৪২ শতাংশ কর হিসেবে সরকারকে দিচ্ছে। তাই এ ক্ষেত্রে ভারতের স্বার্থই রক্ষিত হচ্ছে, চিনের নয়।'

আরও পড়ুনঃ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ ফাইনালে ম্যাচ ফিক্সিং হয়েছিল,বিস্ফোরক অভিযোগ শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন ক্রীড়ামন্ত্র

আরও পড়ুনঃ৯৯ এর ভারত সফরের স্মৃতি রোমন্থন প্রাক্তন পাক পেসারের

আগামী দিনে কোনও চিনা কোম্পানির সঙ্গে চুক্তির ক্ষেত্রে দেশের স্বার্থের দিকটি ভেবে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন অরুণ ধুমল। তিনি বলেছেন,'আগামী দিনে বোর্ড কোনও সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করলে দেশ এবং দেশবাসীর স্বার্থের কথা সবার আগে মাথায় রাখবে। সীমান্তে ভারতীয় সেনার ওপর চিনের আক্রমণের পর আগামী দিনে যে কোনও চিনা সংস্থাকে বর্জন করার পক্ষে বিসিসিআই।  ভারতীয় সংস্থাকেই আগামী দিনে গুরুত্ব দেবে বোর্ড। আগামী দিনে কোনও সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করার ক্ষেত্রে ভারতীয়দের স্বার্থ কতটা রক্ষা পাচ্ছে সেই বিষয়টা আগে দেখা হবে। চিনা সংস্থা ভিভোর সঙ্গে চুক্তি বোর্ডের পূর্ববর্তী সদস্যরা করেছিলেন।  তাই এই চুক্তিকে সম্মান করতে হবে।' তবে চিনা দ্রব্য বর্জন বা চিনা কোম্পানির সঙ্গে ভারত সরকার যদি কোনও সিদ্ধান্ত নেয় তা অবশ্য ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড মানবে বলে জানানো হয়েছে বিসিসিআইয়ের তরফে।