৮৩-র পর দীর্ঘ ২৮ বছর পর ২০১১ সালে ধোনির নেতৃত্বে বিশ্বকাপ জিতে দেশবাসীর স্বপ্ন পূরণ করেছিল টিম ইন্ডিয়া।  এবার ২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ ফাইনালে গড়াপেটার অভিযোগ। আর সেই অভিযোগ তুললেন শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন ক্রীড়া মন্ত্রী মাহিন্দানান্দা অতুলগামাগের।  বছর তিনেক আগে এই অভিযোগ তুলেছিলেন শ্রীলঙ্কার বিশ্বকাপজয়ী প্রাক্তন অধিনায়ক অর্জুনা রনতুঙ্গা।  আবারও সেই একই অভিযোগ তুললেন শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন ক্রীড়ামন্ত্রী। মাহিন্দানান্দা অতুলগামাগে শ্রীলঙ্কার ক্রীড়ামন্ত্রী ছিলেন ২০১০ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত। বর্তমানে তিনি সে দেশের বিদ্যুত্ মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। শ্রালঙ্কার একটি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন,'২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে গড়াপেটা হয়েছিল। আমি যা বলছি, তার জন্য সম্পূর্ণ দায় নিচ্ছি। এটা তখন হয়েছিল, যখন আমি ক্রীড়ামন্ত্রী ছিলাম। দেশের স্বার্থে আমি বিস্তারিত কিছু জানাতে চাইছি না। ভারতের বিরুদ্ধে সেই ম্যাচটা, যেটা আমাদের জেতা উচিত ছিল, ফিক্সড ছিল। সে দিন আমরা বিশ্বকাপ ফাইনাল ভারতের কাছে বিক্রি করে দিয়েছিলাম।'

আরও পড়ুনঃএবার করোনা ভাইরাসের থাবা সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বাড়িতে

আরও পড়ুনঃকরোনাকে হারিয়ে জীবন যুদ্ধে জয়ী হলেন প্রাক্তন রঞ্জি জয়ী ক্রিকেটার

মাহিন্দানান্দা অতুলগামাগে এই বিস্ফোরক দাবির পরই হইচই পড়ে যায় ক্রিকেট বিশ্বে। সেই সময় শ্রলঙ্কা দলের অধিনায়ক কুমারা সাঙ্গাকারা জানিয়েছেন, ‘এটা খুবই গুরুতর অভিযোগ। যেহেতু উনি বলছেন যে ওনার কাছে প্রমাণ রয়েছে, তাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে আইসিসির দুর্নীতি দমন শাখায় সেগুলি তুলে ধরা। আইসিসি তদন্ত করে জানিয়ে দেবে প্রাক্তন মন্ত্রীর দাবি ঠিক না ভুল।’ সেই বিশ্বকাপ ফাইনালে ভারতের বিরুদ্ধে দুরন্ত সেঞ্চুরি করিছিলেন জয়াবর্ধনে। দেশের প্রাক্তন ক্রীড়া মন্ত্রীর এহেন বক্তব্যে বেজায় চটেছেন তিনিও। জয়াবর্ধনে সোশ্যাল মিডিয়ায় জানান যে, নিশ্চই নির্বাচন রয়েছে সামনে। তাই এমন সার্কাস শুরু হয়ে গিয়েছে। তিনি প্রাক্তন ক্রীড়ামন্ত্রীর কাছে গড়াপেটায় জড়িত ক্রিকেটারদের নাম জানতে চেয়েছেন এবং অভিযোগের স্বপক্ষে প্রমাণ দাবি করেছেন। টুইটারে তিনি লেখেন, 'সামনে কি কোনও নির্বাচন রয়েছে? মনে হচ্ছে সার্কাস শুরু হয়ে গিয়েছে। নাম ও প্রমাণ?' কিন্তু ২০১১ বিশ্বকাপের পর কেটে গিয়েছে ৯ বছর। এতদিন কেন মুখ খোলেননি মাহিন্দানান্দা অতুলগামাগে তা নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। এর পেছনে অন্য কোনও রহস্য রয়েছে কিনা তা নিয়েও উঠছে প্রশ্ন।

 

 

আরও পড়ুনঃকরোনা সঙ্গে লড়ছেন,কিন্তু সন্তানদের থেকে দূরত্ব বেদনা দিচ্ছে আফ্রিদিকে